পাতা:কালান্তর - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


कॉलांखुब्र . নি। তা হোক, অচিরণে পদে পদে প্রতিবাদ সত্ত্বেও যুরোপের প্রঙ্গৰ অল্পে অল্পে আমাদের মনে কাজ করছে। বৈজ্ঞানিক বুদ্ধি সম্বন্ধেও ঠিক সেই একই কথা । পাঠশালার পথ দিয়ে ৰিজ্ঞান এসেছে আমাদের স্বারে, কিন্তু ঘরের মধ্যে পাজিপুথি এখনো তার সম্পূর্ণ দখল ছাড়ে নি। তবু যুরোপের বিস্তা প্রতিবাদের মধ্য দিয়েও আমাদের মনের মধ্যে সন্মান পাচ্ছে । - வி তাই ভেৰে দেখলে দেখা যাবে, এই যুগ যুরোপের সঙ্গে আমাদের গভীর সহযোগিতারই যুগ। বস্তুত, যেখানে তার সঙ্গে আমাদের চিত্তের, আমাদের শিক্ষার অসহযোগ, সেইখানেই আমাদের পরাভব । এই সহযোগ সহজ হয়, যদি আমাদের শ্রদ্ধায় আঘাত না লাগে। পূর্বেই বলেছি, য়ুরোপের চরিত্রের প্রতি আস্থা নিয়েই আমাদের নবযুগের আরম্ভ হয়েছিল ; দেখেছিলুম জ্ঞানের ক্ষেত্রে যুরোপ মাছুষের মোহমুক্ত বুদ্ধিকে । শ্রদ্ধা করেছে এবং ব্যবহারের ক্ষেত্রে স্বীকার করেছে তার ভtয়সংগত অধিকারকে । এতে ক’রেই সকলপ্রকার অভাবক্রটি সত্ত্বেও আমাদের আত্মসন্মানের পথ খুলে গিয়েছে। এই আত্মসন্মানের গৌরববোধেই আজ পর্যন্ত আমরা স্বজাতি সম্বন্ধে দুঃসাধ্যসাধনের আশা করছি, এবং প্রবল পক্ষকে বিচার করতে সাহস করছি সেই প্রবল পক্ষেরই বিচারের আদর্শ নিয়ে । বলতেই হবে, এই চিত্তগত চরিত্রগত সহযোগ ছিল ন৷ আমাদের পূর্বতন রাজদরবারে। তখন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আমাদের সেই মূলগত দূরত্ব ছিল যাতে ক’রে আমরা আকস্মিক শুভাষ্টিক্রমে শক্তিশালীর কাছে কদাচিৎ অনুগ্রহ পেতেও পারভূম, কিন্তু সে তারই নিজগুণে ; বলতে পারভূম না ষে, সর্বজনীন স্তায়ধর্ম অনুসারেই, মাছুষ ব’লেই মাছবের কাছে আছুকূল্যের দাৰি আছে। ইতিমধ্যে ইতিহাস এগিয়ে চলল। ৰছ কালের স্বপ্ত এশিয়ায় দেখা দিল জাগরণের উত্তম। পাশ্চাত্যেরই সংঘাতে সংজৰে জাপান অতি }}