পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/১৮৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


     শ্রীবৎসানক-মুদার-কৌস্তুভধরং পীতাম্বরং সুন্দরং।
 যুধিষ্টির বলে গিয়া কহ নৃপবরে।
 হীনজাতি জন লক্ষ্য বিন্ধিতে কি পারে।।
 শুনিয়া পুরোহিত গিয়া দ্রুপদে কহিল।
 পরিচয় না পাইয়া নৃপতি চিন্তিল।।
 পুত্রগণ সহ তবে বিচার করিয়া।
 ছয়খান রথ তব দিল পাঠাইয়া।।
 পুত্রে পাঠাইল অগ্রসরি লইবারে।
 রথ লৈয়া ধৃষ্টদ্যুম্ন গেল তথাকারে।।
 চিহ্ন জানিবার তরে থুইল রাজন।
 পাশাক্রীড়া বেদ বিদ্যা পূরাণ পঠন।।
 ধান্য যব নানা শস্য থুইল দুইভিতে।
 ধনুক বিবিধ অস্ত্র তূণের সহিতে।।
 রথ লৈয়া ধৃষ্টদ্যুম্ন গেল শীঘ্রগতি।
 সবিনয়ে বলে তবে ধর্ম্মরাজ প্রতি।।
 পাঠাইল নরপতি পরম আদরে।
 কৃষ্ণা সহ পঞ্চ ভাই চল তথাকারে।।
 ধর্ম্মরাজ শুনিয়া বিলম্ব না করিয়া।
 পঞ্চ ভাই পঞ্চ রথে চড়িলেন গিয়া।।
 এক রথে কৃষ্ণা সহ ভোজের নন্দিনী।
 বাজিল বিবিধ বাদ্য সুমঙ্গল ধ্বনি।।
 দুই ভিতে নানা রথ থুইল রাজন।
 কারু ভিতে না তিষ্ঠিল ভাই পঞ্চজন।।
 বিচারে জানিল যত বিদ্যাবন্ত জনে।
 ভাঙ্গিল ধনুক সেই গুণ টঙ্কারণে।।
 যথায় বসিয়া রাজা রত্ন সিংহাসনে।
 পাত্র-মিত্রগণ আছে তাঁর সন্নিধানে।।
 দিব্য রাজাসনে বসিলেন পঞ্চজন।
 উঠিয়া আপনি রাজা কৈল সম্ভাষণ।।
 কুন্তী সহ দ্রৌপদীরে অন্তঃপুরে নিল।
 যত নারী হুলাহুলি মঙ্গল করিল।।
 মহাভারতের কথা স্রবণ মঙ্গল।
 কাশীদাস কহে লভে ভারতের ফল।।
      ------
  রাজা কর্ত্তৃক পাণ্ডবের পরিচয় গ্রহণ।
   বসিল দ্রুপদ রাজা পুত্রের সহিতে।
 পাত্রমিত্রগণ আর দ্বিজ পুরোহিতে।।
 পঞ্চজন মুখচন্দ্র করি নিরীক্ষণ।
 হরষিত হইয়া বলিছে এ বচন।।
 কে তোমারা বাস কোথা, কহ সত্য বাণী।
 কে তব জনক বল কে তব জননী।।
 মনুষ্য-লোকের প্রায় নাহি লয় মনে।
 আকৃতি প্রকৃতি দেবতুল্য পাঁচজনে।।
 রূপে পঞ্চজনের না দেখি শ্রেষ্ঠাশ্রেষ্ঠ।
 সবার সমান রূপ জ্যেষ্ঠ কে কনিষ্ঠ।।
 কি বা ইন্দ্র চন্দ্র কাম অশ্বিনীকুমার।
 ইহা মধ্যে হবে চিত্ত লয়েছে আমার।।
 আর যত ধর্ম্ম কর্ম্ম সত্য সম নহে।
 মিথ্যাসম পাপ নাহি সর্ব্বশাস্ত্রে কহে।।
 সর্ব্ব ধর্ম্মাধর্ম্ম তোমা সবার গোচর।
 কহ সত্য খণ্ডুক মনের মতান্তর।।
 যুধিষ্ঠির বলে মোরা পাণ্ডুর নন্দন।
 আমি যুধিষ্ঠির এই দোঁহে ভীমার্জ্জুন।।
 এ নকুল সহদেব জানহ নৃপতি।
 অন্তঃপুরে মাতা কুন্তী সহিত পার্ষতি।।
 এত শুনি নরপতি হইল উল্লাস।
 আপনা পাসরে মুখ নাহি আসে ভাষ।।
 কদম্বকুসুম সম কলেবর ফুলে।
 বসন ভূষণ তিতে নয়নের জলে।।
 শীঘ্রগতি উঠি রাজা করে আলিঙ্গন।
 একে একে সম্ভাষিল ভাই পঞ্চজন।।
 রাজা বলে পূর্ব্বভাগ্য আমার যে ছিল।
 সেই ফলে মনের কামনা পূর্ণ হৈল।।
 কহ শুনি তাত সেই সব বিবরণ।
 গৃহদাহে মৈল বলি জানে সর্ব্বজন।।
 যুদিষ্ঠির বলেন সে গৃহদাহ নয়।
 জৌগৃহ করিল পুরোচন পাপাশয়।।
 বিদুরের মন্ত্রণায় তরিনু তাহাতে।
 শুনিয়া দ্রুপদ রাজা বলে ক্রোধচিতে।।
 এত বড় নির্দ্দয় সে অন্ধ নৃপরাজ।
 নাহি ধর্ম্মভয় নাহি লোক ভয় লাজ।।
 ধর্ম্মেতে রাখিল তোমা সে সব সঙ্কটে।
 মরিবেক পাপিগণ আপন কপটে।।