পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/২৪১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নপৰ্ব্ব । ] rাথের নাথ তুমি ছুর্বর্বলের ৰল । কারণে তোমাকেই কহি যে সকল ॥ দুঃখ কহিতে সবার তুমি স্থান । নাদুঃখ কহি কিছু কর অবঞ্চন ॥ গুবের ভার্য্য। আমি, দ্রুপদ-নন্দিনী । প্রিয়দখি আমি, অৰ্জুন ভামিনী ॥ মারা কেশে ধরি লইল সভায় । ভাম কহিল যত কহনে না যায় ॥ ধৰ্ম্মে ছিলাম আমি এক বস্ত্র পরি । মাথার প্রায় বলে নিল কেশে ধরি ॥ রবংশ পাঞ্চাল পাণ্ডবগণ জীতে । দ্যকৰ্ম্ম বিধিমতে বলিল করিতে ॥ স্থা দ্ৰোণ ধৃতরাষ্ট্র ছিল বিদ্যমান । ব বসি দেখিল আমার অপমান ॥ আমি হেন কহে সৰ্ব্বলোকে । পঞ্চজন সভামধ্যে বসি দেখে ॥ ধিক ভীমবীর ধিক ধনঞ্জয় । গরণে গাণ্ডাব ধনু কেন বয় ॥ স্বতে এমত আমি শুনেছি বিধান । কষ্ট ন। স্বামী দেখে বিদ্যমান ॥ বল হচলে ভাৰ্য্যায় রাখে স্বামী । কারণ এ সবার নিন্দা করি আমি ॥ ইরাপে জন্মে লোক ভাৰ্য্যার উদরে । ই হেতু জায়া বলি বলয়ে ভাৰ্য্যারে ॥ যা ভীত হৈলে লয় স্বামীর শরণ । Iণ যে লয় তারে করয়ে রক্ষণ ॥ মি শরণ আমি এ পঞ্চজনারে । R এর রক্ষণ না করিল অনাথারে ॥ নাহি দেব আমি, হই পুত্রবর্তী । মুথ চাহি না করিল অব্যাহতি ॥ ভজা তব পুত্র প্রদ্যুম্ন যেমন ॥ কেন ইষ্টের সহিল হেন কৰ্ম্ম । ট জিনিল মিথ্যা করিয়া অধৰ্ম্ম৷ পে সভায় বসিয়া সবে দেখে । অপমান করে যত দুষ্টলোকে ॥ পিঙ্গক্ষীং বামহস্তেল মদ্যপূর্ণসমাংস-কং । Woo J গাণ্ডীবী বলিয়া ধনু ধনঞ্জয় ঘরে | | পৃথিবীতে গুণ দিতে কেহ নাহি পারে। ধনঞ্জয় কিম্বা ভীম আর পার তুমি । তবে কেন এত সহে না জানিমু আমি ॥ ধিক ধিক মম নাথ পাণ্ডুপুত্ৰগণ । এত করি অদ্যাবধি জিয়ে দুৰ্য্যোধন ॥ বাল্যকাল হৈতে যত করে সেইজন । অগোচর নহে সব জানহ আপন ॥ কপটে বিষের লাড় ভীমে খাওয়াইল । হস্ত পদ বান্ধি গঙ্গাজলে ফেলাইল ॥ জতুগৃহ করিয়া রহিতে দিল স্থান । ধৰ্ম্ম হৈতে অগ্নিতে পাইল পরিত্রাণ ॥ রাজ্য ধন ল’য়ে তবে পাঠাইল বনে । এতেক সহিল কষ্ট কিসের কারণে ॥ সভায় বসিয়া নাথ দেখে পঞ্চজন । দুঃশাসন হরে মম পিন্ধন বসন ॥ এতেক বলিয়া কৃষ্ণা কহেন তখনে । তোমরা আমার নহ জানিমু এক্ষণে ॥ থাকিলে কি হবে নাথ সভার গোচরে । এতেক দুৰ্গতি মম ক্ষুদ্রলোকে করে ॥ এত বলি কৃষ্ণ। তবে কান্দে উচ্চৈঃস্বরে । বারিধারা নয়নেতে অনিবার ঝরে ॥ পুনঃ গদগদ বাক্যে বলয়ে পার্ষতি । নাহি মোর তাত ভাত নাহি মোর পতি ॥ তুমি অনাথের নাথ বলে সৰ্ব্বজনে । চারি কৰ্ম্মে আমি নাথ তোমার রক্ষণে ॥ সম্বন্ধে গৌরবে স্নেহে স্থার প্রভুপণে । দাসীজ্ঞানে আমারে রাখিলা শ্ৰীচরণে । গোবিন্দ বলেল সখী না কর ক্রমদন । তোমার ক্ৰন্দনে মম স্থির নহে মন ॥ যখন বিবস্ত্র তোম। করে দুঃশাসন । গোবিন্দ বলিয়। তুমি ডাকিল। যখন ॥ অগ্ৰেতে হৈয়াছে মম সেঙ্গ মহাঘাত । যাবৎ কপটি দুস্ট না হয় নিপাত ॥ যেই মত কৃষ্ণা তুমি করেছ রেদিন । সেই মত কান্দি,ব সে সবার স্ত্রীগণ ॥