পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/২৫৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


○ 》b〜 তংপদং দর্শিতং যেন তস্মৈ শ্ৰীগুরবে নমঃ । [ नशब्लड কত দিনান্তরে শুন ধৰ্ম্ম মহাশয় । পুনর্বার পড়িলেন শনির মায়ায় ॥ সেই মহাজন যায় বাহিয়া তরণী । কূলে থাকি দেখিলেন শ্ৰীবৎস আপনি ॥ মহাজন প্রতি রাজা বলিল ডাকিয় । শুন শুন সদাগর কুলেতে আসিয় ॥ নৃপতির উচ্চরব শুনি মহাজন । শীঘ্ৰ করি কুলে তরা লইল তখন ॥ রাজা কহিলেন পরে বিনয় বচন । শুন মহাজন তুমি মোর বিবরণ ॥ বড় বংশে জন্মিলাম পূৰ্ব্ব ভাগ্যবলে । এবার হইনু নস্ট নিজ কৰ্ম্মফলে ॥ কারে কি বলিল আমি কি করিতে পারি । ঈশ্বরের ইচ্ছ। যাহা খণ্ডাইতে নারি । তুমি যদি দয়া করি এই কৰ্ম্ম কর । তবেত তরিব আমি বিপদ-সাগর ॥ কতকগুলি স্বর্ণপাট করিয়াছি আমি । তুলে যদি ল’য়ে যা ও নৌকৃiপরে তুমি ॥ যে দেশে বাণিজ্যে তুমি করিছ পয়ান । সেই দেশে তব সঙ্গে করিব প্রস্থান ॥ স্বর্ণপাট বেচি ঘদি পাই কিছু ধন । তবেত বিপদে তরি এই নিবেদন ॥ রাজার বিনয় বাক্য শুনি মহাজন । কঙ্করেরে অংজ্ঞ করে ল’য়ে এস ধন ৷ পষ্ট হয়ে নরপতি উঠে নৌকাপরে । স্বর্ণপাট ধ'য়ে আনে যতেক নফরে । তুষ্ট হয়ে সদাগর বাহিল তরণী । কি কব শনির মায়া শুন নৃপমণি । কপট পাষণ্ড বড় সেই সদাগর । এই তুষ্টচিন্ত চিত্তে করিল - স্তর ॥ মিলাইল যদি ধন দৈবেতে আমাকে । বুঢ়াই মনের ব্যথা বপিয়৷ ইহাকে ॥ এতেক ভাবিয়া মনে দুষ্ট দুরাচীরে । র! জাকে ধরিয়; ফেলে অপার সাগরে ॥ যতক্ষণ ধরি দুষ্ট করিল বন্ধন । ত্ৰাহি ত্ৰাহি করি রাজা করিছে স্মরণ ॥ কোথা তাল বেতাল বান্ধব দুইজন। T এ মহাবিপদে কর আমারে তারণ ॥ কোথা গেলে চিন্তাদেবী আমারে ছাড়িয় । আমার দুৰ্গতি প্রিয়ে দেখ না আসিয় ॥ সেই নৌকা মধ্যে ছিল চিন্তা পতিব্ৰত কান্দিয় উঠিল রাণী শুনি প্রভু-কথা ॥ যখন ধরিয়া নৃপে ফেলিল সাগরে । আইল বেতাল তাল নিদ্রারূপ ধরে। তাল রক্ষা কৈল চক্ষু, বেতাল হৈল ভেল। ভাসিয়া নৃপতি যান যেন রাশি তুলা ॥ সেইক্ষণে চিন্তাদেবী বালিশ যোগান । - বালিশে আলস্য রাখি ভাসি নুপ যান । শুনহ আশ্চর্য্য কথা ধৰ্ম্মের তনয় । বহুকাল জলে ভাসি সোঁতিপুরে যায় ॥ সৌতিপুরে মালাকার জায়ার ভবনে । আসিয় লাগিল শুষ্ক পুষ্পের উদ্যানে ॥ বহুকাল শুষ্ক ছিল যতপুষ্পবন । রাজ-আগমনে পুষ্প ফুটিল তখন ॥ রাজ দরশনে পুনঃ জীব সঞ্চারিল । পূৰ্ব্বমত সব পুষ্প বিকসিত হৈল ॥ অশোক কিংশুক নাগ ফুটিল বকুল । গন্ধরাজ চাপা ফুটে জারুল পারুল ৷ পুষ্পগন্ধে অলিকুল ধায় মধু আশে । কোকিল কোকিল। গান করিছে হরি ; ষড়ঋতু আসিয়া হইল উপনীত । শর ধনু সহ কাম তথায় উদিত । পূৰ্ব্বমত বন শোভ হইল বিস্তর । কৰ্ম্মান্তর হইতে মালিনী এলে ঘর ॥ অশ্চির্য্য দেখিয় বড় ভাবিছে মালিন ইহার কারণ কিব। কিছুই না জানি । বন দেখি হৃষ্ট অতি মালীর মহিষী ৷ কুসুম কাননে শীঘ্র প্রবেশিল আসি ॥ একে একে নিরখিয়া চতুদিকে চায় । হেনকালে শ্ৰীবৎসকে দেখিল তথায় { কন্দপ আকার এক পুরুষ হন্দর। মালিনী দেখিয়া কহে করি যোড়কর ।