পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৪৫৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


38b" বালগোপালের ধ্যান—ও অব্যান্বকোষীলাম্বুজ- মহাভারত বৃহস্পতি শুক্র সম নীতি তব ভীষ । খড়গধারী হস্ত তব ছদ্মধারী পাশ ॥ সহদেব বলে জান পাণ্ডুর নন্দন । র্তাহার যতেক গাভী লোকে অগণন ॥ করিতাম সেই সব গোধন পালন । মম গুণে প্রীত ছিল পাণ্ডুর নন্দন ॥ আর এক মহৎকৰ্ম্ম জানি নরনাথ । ভবিষ্যৎ ভূত বর্তমান মম জ্ঞাত ॥ পৃথিবীর মধ্যেতে যতেক কৰ্ম্ম হয় । গৃহেতে বসিয়া তাহ জানি মহাশয় ॥ ধৰ্ম্মরাজ-সভাতে ছিলাম চিরকাল । যুধিষ্ঠির মোরে নাম দেন অন্ত্রিপাল ॥ রাজা বলিলেন সব সম্ভবে তোমারে । যে কাম্য তোমার থাকে লহু মম পুরে ॥ যত মম আছে গাভী আর রক্ষিগণ । তোমারে দিলাম সৰ্ব্ব করহ পালন ॥ এমত কহিয়া সহদেবে মহামতি । পঞ্চজনে বাঞ্ছামত দিল নরপতি ॥ মৎস্যদেশে পাণ্ডবেরা রহিল গোপনে । অস্তগিরি মধ্যে যেন সহস্র কিরণে ॥ অগ্নি যেন আছিল ভস্মের মধ্যে লুকি । কেহ না জানিল সবে অনুক্ষণ দেখি ॥” মহাভারতের কথা অমৃত সমান । কাশীরাম দাস কহে শুমে পুণ্যবান ॥ বিরাটপুরে দ্রৌপদীর প্রবেশ ও রাণীর সহিত কথোপকথন । তবে কতক্ষণে কৃষ্ণ প্রবেশে নগরে । চতুর্দিকে স্ত্রী পুরুষ ধায় দেখিবারে ॥ ক্লেশেতে মলিন মূখ দীর্ঘ মুক্তকেশ । -পিন্ধন মলিন জীর্ণ সৈরিন্ধীর বেশ ॥ পুনঃ পুনঃ জিজ্ঞাসেন যত নারীগণ । কে তুমি একাকী ভ্রম কিসের কারণ ॥ তোমার রূপের সীমা বর্ণনা না যায় । দেবকন্ত। কিন্নরী অপলরী অভিপ্রায় । সবারে প্রবোধি কৃষ্ণা বলে এই বাণী । সৈরিন্ধ্রীর কৰ্ম্ম করি নরজাতি আমি ॥ এমতে বেষ্টিত লোকে ভ্ৰমে দেবী কৃষ্ণ । প্রসাদে থাকিয় তাহ দেখিল স্থদেষ্ণা । কৈকেয় রাজার কন্যা বিরাট মহিষী ৷ কৃষ্ণারে আনিল শীঘ্র পাঠাইয়া দাসী ॥ আদর করিয়া তারে যতেক কামিনী । অন্তঃপুরে ল’য়ে গেল যথা রাজরাণী ॥ শত শত রাজকন্যা স্থদেষ্ণা বেষ্টিত । দ্রৌপদীরে দেখি সবে হইল লজ্জিত ॥ নাকে হস্ত দিয়া সবে করে নিরীক্ষণ । স্তন্ধ হ’য়ে অনুমান করে মনে মন ॥ কতক্ষণে জিজ্ঞাসিল বিরাটের রাণী । দেবকন্ত হয়ে কেন ভ্রমহ অবণী ॥ মহাভারতের কথা স্থধা হৈতে স্থধা । সাধুজন করে পান নাশিবারে ক্ষুধা ॥ স্বদেষ্ণা কর্তৃক দ্রৌপদীর রূপ বর্ণন । কিবা লক্ষমা সরস্বতী, হরপ্রিয় হৈমবর্তী, সাবিত্রী কি ব্ৰহ্মার গৃহিণী । রোহিণী চন্দ্রের রাম, রতিসতী তিলোত্তম, কিবা হবে ইন্দ্রের ইন্দ্রাণী ॥ তোমার অঙ্গের আভা,মন করিলেক সভা, | | | | .ځجُم. তারা যেন চন্দ্রর উদয়ে । তোমার শরীর দেখি,নিমিষ না ধরে আণথি, ঘন ঘন কম্পিত হৃদয়ে ॥ শশী নিন্দি মুখপদ্ম, করিয়াছ কেন ছদ্ম, এ বেশ তোমার নাহি শোভে । পেয়ে তব অঙ্গস্ত্রাণ, ত্যজিয়া কুহুমোদ্যান, অলিৱন্দ ধায় মধুলোভে ॥ স্বগনেত্র জিনি অক্ষ, কামশর হৈল তীক্ষ, বাজিলে মরিবে কামরিপু । কণ্ঠ তব কম্বু জিনি, ওষ্ঠ পঙ্কবিম্ব গণি, পঞ্চশর লিপ্ত তব বপু। রক্ত কর কোকনদ, রক্ত কোকনদ প", রক্তযুক্ত অরুণ অধর ।