পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৪৯০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


કાર দিব্যাকল্পের্ণবমণিময়ৈঃ কিঙ্কিনীলুপুরৱাস্তৈঃ । [ অহাভারত । পাৰ্থ বুলিলেন দেব ভদ্র আপনার । । কি হেতু এ মৎস্যদেশে গমন তোমার ॥ বিরাটের গাভী নিতে আসিয়াছ প্রায় । এমন কুকৰ্ম্ম কি তোমার শোভা পায় ॥ পরগাভী লইলে যতেক হয় পাপ । আপনি জানহ তুমি অঙ্গে ভুঞ্জে তাপ ॥ তথাপিও ল্যেভ নাহি পার সম্বরিতে । সসৈন্তেতে আসিয়াছ পরগাভী নিতে ॥ ভীষ্ম বলে নাহি আসি গাভীর কারণ । তুমি আছ হেথায় কহিল দূতগণ ॥ বহুদিন নাছি দেখি ব্যাকুলিত চিত্ত। দুৰ্য্যোধন সহ আইলাম এ নিমিত্ত ॥ ক্ষত্রিয় নিয়ম আছে বেদের বচন । বাহুবলে শাসিবেক পর রাজ্যধন ॥ আমার এ ধন রাজ্যে কোন প্রয়োজন । যতেক করি যে তোমা সবার কারণ ॥ পার্থ বলে পিতামহ তোমার প্রসাদে । বঞ্চিলাম ত্রয়োদশ বর্ষ অপ্রমাদে ॥ তোমার প্রসাদে আমা ভাই পঞ্চজনে । বহু বহু কষ্টে রক্ষা পাইলাম বনে ॥ ভূমি যে গুরুর গুরু হও মহাগুরু । কুরুবংশ-কর্তা তুমি যেন কল্পতরু ॥ পাশাকালে দুঃখ তুমি জানহ আপনে । তাহার উচিত ফল দিব ছষ্টগণে ॥ আজ্ঞা কর একভিতে লৈতে নিজ রথ । দুৰ্য্যোধনে ভেটিব ছাড়িয়৷ দেহ পথ ॥ ষ্টীষ্ম বলে আমার রক্ষিত দুৰ্য্যোধন । আমা না জিনিলে কোথা পাবে দরশন। অৰ্জুন বলেন তবে বিলম্বে কি কাজ । গীঘ্র কর উপায় রাখিতে কুরুরাজ ॥ এত শুনি কুপিত হইল কুরুবর । ঈষ্ট বাণ প্ৰহারিস্কন-অৰ্জ্জন উপর ॥ লষ্টগোটা ভুজঙ্গ সদৃশ অষ্ট,শর। "াশব্দে চলি যায় অৰ্জ্জুন উপর ॥ ভল্ল দিয়া কাটিলেন ধনঞ্জয় । ঃ দিব্য অস্ত্র মারে গঙ্গার তনয় ॥ মহাশব্দে আসে বাণ ভাস্কর সমান । অৰ্দ্ধ পথে অর্জন করেন খান খান ॥ দুই জনে যুদ্ধ হৈল অতি ভয়ঙ্কর । নানাবর্ণে এড়িলেন চোখ চোখ শর ॥ দোহে দোহাকার বাণ করেন বারণ । অনিমিষ দোহাকার নয়নে নয়ন ॥ * অনলে বারুণ মারে বায়ব্যে বারুণি । , আকাশে বায়ব্য মারে শীতেতে আগুনি ॥ পমগে পমগগণ বায়ুতে পৰ্ব্বত । পুনঃ পুনঃ দোহে বাণ করে এইমত ॥ দোহাকার শরজালে ত্ৰৈলোক্য কম্পিত । চট, চট, শব্দ সে হইল অপ্রমিত ॥ দোহাকার বাণে দোহে ব্যথিত হৃদয় । দোহাকার অঙ্গে ঘন শ্রমজল বয় ॥ সাধু পার্থ সাধু ভীষ্ম গঙ্গার নন্দন । সাধু সাধু প্রশংসা করিছে দেবগণ ॥ ইন্দ্র বাণ দিয়া তবে ইন্দ্রের নন্দন । কাটিলেন ভীষ্মের হাতের শরাসন ॥ আর ধনু ধরি ভীষ্ম বরিষয়ে বাণ । সেই ধনু কাটিলেন করিয়া সন্ধান ॥ দিব্য বাণে কাটিলেন কবচ তাহার । তীক্ষ দশ বাণ দিয়া করেন প্রহার ॥ বাণাঘাতে অচেতন গঙ্গার তনয় । দেখিয়া বিস্ময় মানি কহে কুরুচয় ॥ মহাভারতের কথা অমৃত-সমান। কাশীরাম দাস কহে শুনে পুণ্যবান ॥ হুর্য্যোধনের সহিত অৰ্জুনের যুদ্ধ ও মোহ । অচেতন দেখি রথ ফিরায় সারথি । ভীষ্ম ভঙ্গ দেখি ক্রোধে যায় কুরুপতি ॥ গজেন্দ্র চড়িয়া যেন ইন্দ্র দেবরাজ । চতুর্দিকে বেড়ি যায় ক্ষক্রিয়-সমাজ ॥ উনশত সহোদর বেষ্টিত চৌপাশে । সবে অস্ত্ৰ শস্ত্র পার্থ উপরে বরিষে । -