পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৫০০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8રૂર সপাবদ্ধ নিতম্ববিপুলাং বানান ধনুৰ্ব্বিভ্রতীম্। পাণ্ডবের উদয় শুনিয়া বন্ধুগণ । শ্ৰুতমাত্র মৎস্যদেশে করিল গমন ॥ দ্বারক হইতে কৃষ্ণ সপ্তবংশ লৈয়া । রাম কৃষ্ণ দুই ভাই গরুড়ে চড়িয় ॥ প্রত্যুম্ব সাত্যকি শাম্ব গদ আদি করি । সত্যভামা রুক্মিণী প্রভূতি যত নারী ॥ মৃভদ্রা সৌভদ্র আর যতেক সারথি । সহ পরিবার আইলেন লক্ষীপতি ॥ আইল পাঞ্চল হৈতে দ্রুপদ রাজন। ধৃষ্টদ্যুম্ন সহ পঞ্চ কৃষ্ণার নন্দন ॥ উগ্ৰসেন বসুদেব উদ্ধব অক্ৰুর। সৰ্ব্ব রাজা উত্তরিল বিরাটের পুর ॥ নানাধুতি স্বকৃতি কৌতুক নরপতি । ঝিল্ল উপঝিল্ল তথ। এল শীঘ্ৰগতি ॥ মাতাসহ অভিমনু্য অৰ্জ্জুন-নন্দন । চিত্রসেন সারথি আইল সেইক্ষণ " বৃষ্ণি ভোজ উলুক প্রধান সেনাপতি । পুরীসহ শ্ৰীগোবিন্দ আইলেন তথি ॥ গঙ্গ দশ সহস্ৰ তুরঙ্গ তিন লক্ষ । এক লক্ষ রথেতে আইল সৰ্ব্বপক্ষ । লশ লক্ষ চর আইসে পদাতিকগণ । স্বয়ং কৃষ্ণ আইলেন বিরাট ভবন ॥ গোবিন্দেরে দেখি পঞ্চ পাণ্ডব সানন্দ । চকোর পাইল যেন পূর্ণিমার চন্দ্র । আলিঙ্গন দিয়া রাজা কৃষ্ণ ন ছাড়েন । দুই ধারা নয়নেতে অশ্রত বরিষেণ । অঞজলে গোবিদের ভালে পীতবাস । মুখেতে ন৷ স্বরে বাক্য গদ গদ ভাষ ॥ প্ৰণমিয়া গোবিন্দ বলেন মৃদুভাষ । একে একে পঞ্চ ভাই করেন সন্তাষ ॥ সবারে করেন পুজ রাজা মহাশয় । প্রত্যক্ষ সবারে দেন উত্তম আলয় ॥ [ মহাভারত । | উৎসব করিল তবে বিবাহ কারণ। নট নটী নৃত্য করে বিবিধ বাজন ॥ নানা বস্ত্র ভুষণ কন্যারে পরাইল । রোহিণী চন্দ্রমা যেন উভয়ে মিলিল ॥ সৰ্ব্বগুণে স্বলক্ষণ উত্তর যে নাম । অভিমমু্য সঙ্গে যেন মিলে রতি কাম ॥ অৰ্জ্জুন-তনয় অভিমনু্য মহামতি । কৃষ্ণ ভাগিনেয় বহুদেবের যে নাতি ॥ ভক্তিভাবে মৎস্যরাজ করে কন্যাদান । রথ অশ্ব গজ দিল প্রধান প্রধান ॥ এক লক্ষ দিল গজ রত্নসিংহাসন । প্রবাল মুকুত রত্ন দিল নানা ধন ॥ হেনমতে সবান্ধবে কুতুহল মনে । ধৰ্ম্ম নিবসেন সুখে বিরাট ভবনে ॥ বিদায় করেন ধৰ্ম্ম যত রাজাগণ । যে র্যাহার দেশে সব করিল গমন ॥ শ্ৰীকৃষ্ণ রহেন তথা আর অভিমমু্য । বিদায় করেন কৃষ্ণ আর যত সৈন্য । যত যদুনারা সৰ্ব্ব গেল দ্বারকারে । বলভদ্র আদি আর যতেক কুমারে ॥ মহাভারতের কথা অমৃত-লহরী। শুনিলে অধৰ্ম্ম খণ্ডে পরলোকে তরি । পাণ্ডবের উদয় শুনয়ে যেই জন । সৰ্ব্বদুঃখে তরে সেই ব্যাসের বচন ॥ কোটি ধেনু দান সম শ্রবণেতে ফল । তরয়ে আপদ হৈতে শরীর নিৰ্ম্মল ৷ হরিকথা শ্রবণেতে সৰ্ব্বপাপ যায় । আদ্য অন্ত হৈতে যেব হরিগুণ গায় । পাণ্ডব উদয় আর কৃষ্ণের মিলনে । মহা মহাপাপ ধ্বংস যাহার শ্রবণে ॥ কাশীরাম দাস কহে শুনে পুণ্যবান । এতদুরে বিরাট হইল সমাপন ॥ ইতি বিরাটপৰ্ব্ব সমাপ্ত ।