পাতা:কাশীদাসী মহাভারত.djvu/৭৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নারীপৰ্ব্ব । ] হুবর্ণ রচিত পুরী নিল কোন জন । কহ কৃষ্ণ কোথা গেল আমার নন্দন ॥ সকুণ্ডল কনক শরীর হুকুমার । দুঃশাসন আদি পুত্র কোথা সে আমার ॥ শোক দুঃখ ভয়ে আমি হৈলাম উন্মন । কোথা শত বধু মোর খঞ্জননয়ন ॥ স্মরণ করিতে মম বিদরে পরাণ । হস্তিনা হইল শূন্য শুন ভগবান ॥ এ বড় অন্তরে দুঃখ নহিল আমার । বুদ্ধকালে কোন গতি হইবে আমার ॥ মরিলে পুত্রের হাতে না পাব’ আগুন । ইহা ভাবি আরো দুঃখ বাড়ে চতুগুণ ॥ কি বুঝিয়া এত তাপ দিলেন ‘আমারে । শুন হে করুণাময় নিবেদি তোমারে ॥ এত জ্বালা আগেতে না জানি গদাধর । পুত্ৰশোকে আমার দহিছে কলেবর ॥ ওহে ভীমসেন শুন আমার বচন । আর বিষ তোমারে না দিবে দুৰ্য্যোধন ॥ আর কেব। জতুগৃহ করিবে নিৰ্ম্মাণ । ঘুচাইল সব ভয় প্রভু ভগবান ॥ শকুনি আমার ভাই গেল কোথাকারে । আর কে মন্ত্রণ দিবে আমার পুত্রেরে ॥ ওহে যুধিষ্ঠির তব হৈল শুভ দশ । আর কে তোমার সঙ্গে খেলাইবে পাশ ॥ গান্ধারের নাথ কোথা দুরাত্মা শকুনি । তোমা সবাকার ভয় ঘুচিল এখনি ॥ " এত বলি গান্ধারী পড়িল ভূমিতলে । যুধিষ্ঠির ধরি তুলিলেন সেইকালে ॥ সাস্তুন করেন কৃষ্ণ বিবিধ প্রকারে । নানাবিধ শাস্ত্র কথা বুঝাইল র্তারে ॥ শুন গে। গান্ধারী শুন পূর্ব বিবরণ। ভূমিষ্ঠ হইল যবে রাজা দুৰ্য্যোধন ॥ এ শোকে সে সব কথা নহেত বিধান । বিন্ধুর কহিল যত সকলি প্রমাণ ॥ দুৰ্য্যোধন শোকেতে ক্ৰন্দন কর বৃথা । অনিত্য সংসার এই আমি আছি কোথা ॥ পুনঃ পুনঃ মম বাক্য না কর লঙ্ঘন । করদ্বয়ামৃতঘটং কৈলাশকান্তং শিবং । ৭২৫ অদ্য বা পক্ষান্তে হয় অবশ্য মরণ । শুন গো গান্ধারী শোক কর আকারণ ॥ বিস্ময় পাণ্ডব-কথা অমৃত লহরী । , শুনিলে অধৰ্ম্ম খণ্ডে পরলোকে তরি ॥ শুন শুন ওহে ভাই হ’য়ে একমন । কাশীরাম দাস কহে ভারত কথন ॥ খ্ৰীকৃষ্ণ, ব্যাস ও নারদের নানা উপদেশে যুধিষ্ঠিরাদির হস্তিনায় গমন । বলেন বৈশম্পায়ন শুনহ রাজন। যুধিষ্ঠিরে তখন কহেন নারায়ণ ॥ | অঙ্গীকার তথাপি না করেন রাজন । পুনশ্চ কহেন কৃষ্ণ মধুর বচন ॥ ! শুন ওহে ধৰ্ম্মরাজ ক্ষমা দেহ মনে । হস্তিনানগরে চল আমার বচনে ॥ পৃথিবী পালহ রাজ সিংহাসনে বসি । ধৰ্ম্মের নন্দন তুমি হবে রাজ্যবাসী ॥ যে দুঃখ পাইলে তুমি বেড়াইয়া বনে । সে সকল কথা কেন নাহি কর মনে ॥ রজঃস্বল দৌপদীর কেশেতে ধরিল। সভামধ্যে দুঃশাসন বটিতি আনিল ॥ দ্রৌপদীরে উরু দেখাইল দুৰ্য্যোধন । তাহ সব পাসরিলে ধৰ্ম্মের নন্দন ॥ তথাপি এতেক ভয় বুঝিতে না পারি। বিলম্ব না কর, চল হস্তিনানগরী ॥ এত যদি কহিলেন দৈবকী-নন্দন । দিলেন পাগুৰ জ্যেষ্ঠ উত্তর বচন ॥ দুর্য্যোধন পাইল আপন কৰ্ম্মফল । i আমাকে উচিত নহে ভকত্বেংসল ॥ রাজ্যভোগ কখন নাহিক মম মনে । নিরবধি পড়ে মনে ভাই দুর্য্যোধনে ॥ যুক্তি নহে সে সকল বচন শুনিতে। ! ভীমাৰ্জ্জুন ল’য়ে তুমি যাহ হস্তিনাতে ॥ গোবিন্দ বলেন শুন পাণ্ডুর নন্দন ।