পাতা:কৌত্তক বিলাস.djvu/২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কৌত্তক বিলাস । ২১ পত্তি অতি ভাজন। আমি হেন রসৰতী ত্যজির। আমায় ৷ পর সঙ্গে রঙ্গরস তার সর্বদায় ৷ আমারে কখন প্রিয় বাক্য নাহি কয় । নিশীতে বিচ্ছেদ সই কই লো কোথায় । কেবল ধৰ্ম্মের ভয় ভাবি পরিণাম । মনে তে বাসনা হয় লিখাইতে নাম ॥ অন্য রসবতী কহে । দহে কালানলে। কহিতে আপন দুঃখ ভাসে অঙ্কজলে ৷ নবীন যুবতী আমি তাহে রসবতী। আমারে মিললে বিধি অতি বৃদ্ধ পতি ৷ দুখতে ফাটয়ে বুক মুখ দেখে তার। লোল চয় তিন মাথা বৰ্ত্তল আকার। সস্থল কলসীকান ডাবার বৈঠক ! পাকাটীর নল মুখে কাশে খক২ অহনিশী বিমরিশ নেত্ৰে বহে জল । শোনলুড়া সম বুড়ার মাথার কুণ্ডল৷ দেখিয় পতির রঙ্গ মরিলে। জুলিয়। লোক লাজে থাকি মাত্র একত্রে শুইয়া । শয়ন কলঙ্ক মাত্র লোকে ভুল বলে । রতি রঙ্গ পতিসস নহে কোনকালে ৷ আমার বাসন নাই তার যদি হয় । হরিষে বিষাদ তাতে প্রমাদ নিশ্চয় । চুম্বন করিতে যদি তার হয় সাধ। সুখে উপজয়ে দুঃখ বিষম বিষাদ ॥ দংশিতে অধর তার দশন নড়য় । আহ উহু মরি ব ো দাতের জুলায়। আসক মাসক হুকু তারে কে থেকায়। অামার কপালে একি হায় ৩। মরি মনোদুঃখে দেখি রতিহীন পতি । কি দোষ তাহার দিব সেই ভীমরতি । আছে গৰু কিন্তু সই নাহি বহে হ'ল । অভাগির দুঃখ