পাতা:গীতা-গ্রন্থাবলী (উপেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়).djvu/২০৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


వా উত্তর গীতা । গবামনেকবর্ণনাং ক্ষীরং স্তাদেকবর্ণতঃ । ক্ষীরবদখতে জ্ঞানং দেহানাঞ্চ গবাং যথা ॥ ৪৩। আহার-নিদ্রা-ভয়-মৈথুনঞ্চ, সামান্তমেতৎ পশুভিন রাণামূ জ্ঞানং নরাণামধিকং বিশেষো, জ্ঞানেন হীনাঃ পশুভি: সমান; ॥৪৪ প্রতিমূত্রপুরীষাভ্যাং মধ্যাহ্নে স্কুৎপিপাসয় । তৃপ্তাঃ কামেন বাধ্যস্তে চান্তে বা নিশি নিদ্রয়া ॥ ৪৫ ৷ নাদবিন্দুসহস্রাণি জীবকোটিশতানি চ। সৰ্ব্বঞ্চ ভস্মনিধুতং যত্র দেবো নিরঞ্জন: ॥ ৪৬ ॥ অহং ব্রহ্মেতি নিয়তো মোক্ষহেতুর্মহাত্মনাম্ ॥ ৭৭ ৷ দ্ধে পদে বন্ধমোক্ষায় নিৰ্ম্মমেতি মমেতি চ । মমেতি বধ্যতে জন্তুনিৰ্ম্মমেতি বিমুচ্যতে ॥ ৪৮ ধেনু সকল পৃথক পৃথক বর্ণবিশিষ্ট হইলে তাহাদিগের দুগ্ধ যেরূপ একবর্ণবিশিষ্ট হয়, সেইরূপ জীবগণের দেহ ভিন্ন ভিন্ন রূপবিশিষ্ট হইলেও তাহাদিগের আত্মা ভিন্ন নহে, সকলের আত্মাই একরূপ ॥ ৪৩ ॥ হে ধনঞ্জয় ! কি আহার, কি নিদ্রা, কি ভয়, কি মৈথুন, এই সমস্ত বিষয়ে পশুর সহিত মানবের কিছুমাত্র প্রভেদ নাই। একমাত্র জ্ঞানলাভ করিলেই মানব পশু হইতে শ্রেষ্ঠ হইতে পারে, স্বতরাং স্পষ্টই প্রতীয়মান হইতেছে যে, যাহারা জ্ঞানশূন্ত, তাহারা পশুতুল্য সন্দেহ নাই ॥ ৪৪ ॥ প্রভাতকালে মানবগণ যেমন মলমূত্র বিসর্জন করে, মধ্যাহ্নকালে ক্ষুধা ও তৃষ্ণায় প্রপীড়িত হইয়৷ ভোজন পূর্বক তৃপ্ত হয় আর নিশাকালে বিহারান্থে নিদ্রা যায়, পশুগণও সেইরূপ করিয়া থাকে স্বতরাং মন্থয়ের সহিত তাছাদিগের কি প্রভেদ আছে? একমাত্র তত্ত্বজ্ঞানসঞ্চার হইলেই পশু হইতে প্রভিন্ন হওয়া যায় ॥ ৪৫ ৷৷ সহস্ৰ সহস্ৰ নাদবিন্দু এবং কোটি জীব দগ্ধাভূত হইয় নিরঞ্জন ব্রহ্মে লয় প্রাপ্ত হইতেছে ; সুতরাং “আমিই ব্ৰহ্ম” যাহার এই জ্ঞান জন্মিয়াছে, সেই ব্যক্তিই মুক্তিলাভে সমর্থ হয় ॥ ৪৬-৪৭ - হে অৰ্জুন! নিৰ্ম্মমতা ও মমতা এই দুইটি জীবের মুক্তি ও বন্ধনের একমাত্র কারণ । “আমি, আমার ইত্যাদি মমতাজ্ঞান যতক্ষণ বিদ্যমান থাকে, তাবৎ জীব বন্ধ থাকে, কিন্তু যখন “আমি, আমার” ইত্যাদি জ্ঞান দূরীভূত হইয়া নিৰ্ম্মমতাসঞ্চার হয়, তখনই"জীব মোক্ষলাভ করে সন্দেহ নাই ॥ ৪৮ ॥