পাতা:গোবিন্দ দাসের করচা.djvu/৬৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গোবিন্দ দাসের করচ ہوا আয়ার আমাকে এই কথাগুলি একখানি চিঠি লিথিয়াও জানাইয়াছেন, তাহ পাদটীকায় দেওয়া গেল । * • এখন দেখা যাইতেছে লেখকের কোন সিদ্ধান্তই গ্রহণ করা নিরাপদ নন্তে, সুতরাং এ সম্বন্ধে বাক্‌বিতণ্ড করা বৃথা । কিন্তু আটা চুণ যদি সে দেশে এষ্ট আকারে না থাকিত,—যদি শুধু ময়দাকেই তাহ। বুঝাইত, তথাপি ৪১৫ বৎসর পূৰ্ব্বে সেখানে উক্ত দ্রব্য সুলভ হওয়ার বহু অজ্ঞাত কারণ থাকিতে পারিত। ধরুন, সে সময়ে মুসলমানদের সঙ্গে যুদ্ধ-বিগ্রহের দরুণ অশাস্তিতেই হউক অথবা বিজয়নগরের হিন্দু রাজত্বের অভূতপূৰ্ব্ব গৌরবে আরুষ্ট হইয়াই হউক, বহু উত্তর পশ্চিমবাসী লোকের দাক্ষিণাত্যে যাইয়া বাস করিবার কারণ দাড়াইয়াছিল। তাহারা হয়ত শেষে অন্নাহারী হইয়াছিলেন ; কিন্তু প্রথম দুই এক শতাব্দীতে র্তাহীদের দেশ প্রচলিত খাদ্য থাইতেন, সুতরাং সে দেশে ময়দ তখন মুলভ থাকিবার কথা । সে যাহা হউক যখন “আটা চুণা” দ্বারা তাহারা যাহা বুঝিতেন, তাহা সে দেশে তৎকালে খুবই প্রচলিত ছিল, ইহার অকাট্য প্রমাণ পাওয়া যাইতেছে, তখন কাল্পনিক অস্ত্র শানাইয়া লড়াই করিবার কোন দরকার নাই । রাজা রুদ্রপতি । ত্রিবাস্কুরের ইতিহাসে তৎসময়ে রাজা এ, রবিবৰ্ম্মার নাম পাওয়া যায়, কিন্তু করচায় রাজার নাম লিখিত হইয়াছে রুদ্রপতি, ইহা লইয়া তাহারা খুবই হৈ চৈ করিয়াছেন। ১৫১০ খৃষ্টাব্দের একখানি তাম্রশাসনে পাওয়া যায় সেই সময়ে ত্রিবাঙ্কুরের রাজা ছিলেন মাৰ্ত্তও বৰ্ম্ম । তিনি কালকান্দ রাজধানীর বীরপ্যাণ্ডান প্রাসাদ হইতে উক্ত তাম্রশাসনপ্রকাশ করেন। কিন্তু পিঃ সান গুনি তাহার ত্রিবাছুরের ইতিহাসে লিখিয়াছেন মাৰ্ত্তও বৰ্ম্ম সে সময়ে রাজত্ব করেন নাই, তখন রাজা ছিলেন এ, রবিবৰ্ম্ম । মার্তও বৰ্ম্ম, এ, রবিবৰ্ম্মার পরে ১৫২৮ খৃষ্টাব্দ হইতে ১৫৩৭ খৃষ্টাদ পর্য্যস্ত রাজত্ব করেন। সুতরাং সেই সময়ে কে রাজা ছিলেন, তাহা লষ্টয়া গোল আছে । ত্রিবাস্তুর সে সময় ( ১৫৬৫ খৃঃ পৰ্য্যস্ত) বিজযনগরের অধীন একটা ক্ষুদ্র রাজ্য ছিল । এবং তথাকার জনৈক শিক্ষিত ও সন্ত্রাস্ত ব্যক্ত আমাকে জানাইয়াছেন, সেই সময়ে এই ক্ষুদ্র রাজ্যটিতে আবার বহু অধিনায়ক ছিলেন। সুতরাং চৈতন্তদেব তাহাদের মধ্যে সেইরূপ কোন ক্ষুদ্র নেতার রাজ্যে গিয়াছিলেন কিনা, জানা যায় নাই ।

  • “Atta Chuna is a kind of flour—a mixture of whent, rice and the green pulse fried and powdered. It is an ordinary diet for persons who go on long journoy. It is taken with sugar or jaggery after mixing with a little water. It was and is even now an article of diet with orthodox men and women.”