পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১০৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


বললেন, এখনই তিনি আসছেন। বাবা অনাথবাবুদের বাড়ি গেছেন, তাঁরও আসতে দেরি হবে না।”

 সুচরিতা বিনয়ের সংকোচ ভাঙিয়া দিবার জন্য গােরার কথা তুলিল। হাসিয়া কহিল, “তিনি বােধ হয় আমাদের এখানে আর কখনাে আসবেন না?”

 বিনয় জিজ্ঞাসা করিল, “কেন?”

 সুচরিতা কহিল, “আমরা পুরুষদের সামনে বেরােই দেখে তিনি নিশ্চয় অবাক হয়ে গেছেন। ঘরকনার মধ্যে ছাড়া মেয়েদের আর কোথাও দেখলে তিনি বােধ হয় তাদের শ্রদ্ধা করতে পারেন না।”

 বিনয় ইহার উত্তর দিতে কিছু মুশকিলে পড়িয়া গেল। কথাটার প্রতিবাদ করিতে পারিলেই সে খুশি হইত, কিন্তু মিথ্যা বলিবে কী করিয়া। বিনয় কহিল, “গােরার মত এই যে, ঘরের কাজেই মেয়েরা সম্পূর্ণ মন না দিলে তাদের কর্তব্যের একাগ্রতা নষ্ট হয়।”

 সুচরিতা কহিল, “তা হলে মেয়েপুরুষে মিলে ঘর-বাহিরকে একেবারে ভাগ করে নিলেই তাে ভালো হত। পুরুষকে ঘরে ঢুকতে দেওয়া হয় বলে তাদের বাইরের কর্তব্য হয়তাে ভালাে করে সম্পন্ন হয় না। আপনিও আপনার বন্ধুর মতে মত দেন নাকি ?”

 নারীনীতি সম্বন্ধে এ-পর্যন্ত তাে বিনয় গােরার মতেই মত দিয়া আসিয়া- ছিল। ইহা লইয়া সে কাগজে লেখালেখিও করিয়াছে। কিন্তু সেইটেই যে বিনয়ের মত, এখন তাহা তাহার মুখ দিয়া বাহির হইতে চাহিল না। সে কহিল, “দেখুন, আসলে এসকল বিষয়ে আমরা অভ্যাসের দাস। সেইজন্যেই মেয়েদের বাইরে বেরােতে দেখলে মনে খটকা লাগে— অন্যায় বা অকর্তব্য বলে যে খারাপ লাগে, সেটা কেবল আমরা জোর করে প্রমাণ করতে চেষ্টা করি। যুক্তিটা এ স্থলে উপলক্ষ মাত্র, সংস্কারটাই আসল।”

 সুচরিতা কহিল, “আপনার বন্ধুর মনে বােধ হয় সংস্কারগুলো খুব দৃঢ়।”

 বিনয়। বাইরে থেকে দেখে হঠাৎ তাই মনে হয়। কিন্তু একটা কথা

আপনি মনে রাখবেন, আমাদের দেশের সংস্কারগুলিকে তিনি যে চেপে ধরে

৯৪