পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


 গােরা। স্ত্রীজাতিকে যে ভাবে ভক্তি করছ তার জন্যে শাস্ত্রের দোহাই পেড়াে না। ওকে ভক্তি বলে না, যা বলে তা যদি মুখে আনি তত মারতে আসবে।

 বিনয় । এ তুমি গায়ের জোরে বলছ।

 গােরা। শাস্ত্রে মেয়েদের বলেন, পূজার্হা গৃহদীপ্তয়ঃ। তাঁরা পূজার্হা কেননা গৃহকে দীপ্তি দেন, পুরুষমানুষের হৃদয়কে দীপ্ত করে তােলেন ব’লে বিলিতি বিধানে তাঁদের যে মান দেওয়া হয় তাকে পূজা না বললেই ভালো হয়।

 বিনয়। কোনাে কোনাে স্থলে বিকৃতি দেখা যায় বলে কি একটা বড় ভাবের উপর ওরকম কটাক্ষপাত করা উচিত।

 গােরা অধীর হইয়া কহিল, “বিনু, এখন যখন তােমার বিচার করবার বুদ্ধি গেছে তখন আমার কথাটা মেনেই নাও— আমি বলছি, বিলিতি শাস্ত্রে স্ত্রীজাতি সম্বন্ধে যে-সমস্ত অত্যুক্তি আছে তার ভিতরকার কথাটা হচ্ছে বাসনা। স্ত্রীজাতিকে পুজো করবার জায়গা হল মার ঘর, সতীলক্ষ্মী গৃহিণীর আসন— সেখান থেকে সরিয়ে এনে তাঁদের যে স্তব করা হয় তার মধ্যে অপমান লুকিয়ে আছে। পতঙ্গের মতাে তােমার মনটা যে কারণে পরেশবাবুর বাড়ির চারি দিকে ঘুরছে, ইংরিজিতে তাকে বলে থাকে ‘লাভ’– কিন্তু ইংরেজের নকল ক’রে ওই লাভ্ ব্যাপারটাকেই সংসারের মধ্যে একটা চরম পুরুষার্থ বলে উপাসনা করতে হবে, এমন বাঁদরামি যেন তােমাকে না পেয়ে বসে!”

 বিনয় কষাহত তাজা ঘােড়ার মতাে লাফাইয়া উঠিয়া কহিল, “আঃ গােরা, থাক, যথেষ্ট হয়েছে।”

 গােরা। কোথায় যথেষ্ট হয়েছে। কিছুই হয় নি। স্ত্রী আর পুরুষকে তাদের স্বস্থানে বেশ সহজ করে দেখতে শিখি নি বলেই আমরা কতকগুলাে কবিত্ব জমা করে তুলেছি।

 বিনয় কহিল, “আচ্ছা, মানছি, স্ত্রীপুরুষের সম্বন্ধ ঠিক যে জায়গাটাতে

১৯