পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪১৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।


কুসংস্কারের ভারতবর্ষ, আমার এই পৌত্তলিক ভারতবর্ষ। তুমি এর সঙ্গে যদি ভিন্ন হতে চাও তবে আমার সঙ্গেও ভিন্ন হবে।”

 এই বলিয়া গােরা উঠিয়া ঘর হইতে বাহির হইয়া ছাতে বেড়াইতে লাগিল। বিনয় চুপ করিয়া বসিয়া রহিল। বেহারা আসিয়া গােরাকে খবর দিল অনেকগুলি বাবু তাহার সঙ্গে দেখা করিবার জন্য বাহিরে অপেক্ষা করিতেছে। পলায়নের একটা উপলক্ষ পাইয়া গােরা আরাম বােধ করিল; সে চলিয়া গেল।

 বাহিরে আসিয়া দেখিল, অন্যান্য নানা লােকের মধ্যে অবিনাশও আসিয়াছে। গােরা স্থির করিয়াছিল অবিনাশ রাগ করিয়াছে। কিন্তু, রাগের কোনাে লক্ষণ প্রকাশ পাইল না। সে আরও উচ্ছ্বসিত প্রশংসাবাক্যে তাহার গতকল্যকার প্রত্যাখ্যান-ব্যাপার সকলের কাছে বর্ণনা করিতেছিল। সে কহিল, “গৌরমােহনবাবুর প্রতি আমার ভক্তি অনেক বেড়ে গেছে; এতদিন আমি জানতুম উনি অসামান্য লােক, কিন্তু কাল জানতে পেরেছি উনি মহাপুরুষ। আমরা কাল ওঁকে সম্মান দেখাতে গিয়েছিলুম; উনি যেরকম প্রকাশ্যভাবে সেই সম্মানকে উপেক্ষা করলেন সেরকম আজকালকার দিনে কজন লােক পারে! এ কি সাধারণ কথা!”

 একে গােরার মন বিকল হইয়া ছিল, তাহার উপরে অবিনাশের এই উচ্ছ্বাসে তাহার গা জ্বলিতে লাগিল; সে অসহিষ্ণু হইয়া কহিল, “দেখাে, অবিনাশ, তােমরা ভক্তির দ্বারাই মানুষকে অপমান কর— রাস্তার ধারে আমাকে নিয়ে তােমরা সঙের নাচন নাচাতে চাও, সেটা প্রত্যাখ্যান করতে পারি এতটুকু লজ্জাশরম তােমরা আমার কাছে প্রত্যাশা কর না! একেই তােমরা বল মহাপুরুষের লক্ষণ! আমাদের এই দেশটাকে কি তােমরা কেবলমাত্র একটা যাত্রার দল বলে ঠিক করে রেখেছ? সকলেই পালা নেবার জন্যে কেবল নেচে বেড়াচ্ছে! কেউ এতটুকু সত্য কাজ করছে না। সঙ্গে যােগ দিতে চাও ভালো, ঝগড়া করতে চাও সেও ভালো, কিন্তু দোহাই তােমাদের, অমন করে বাহবা দিয়াে না।”

৪০৪