পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।


৫৬

হারানবাবুকে যখন বরদাসুন্দরী ডাকিয়া সকল কথা বলিলেন তখন তিনি কিছু ক্ষণ গম্ভীর হইয়া বসিয়া রহিলেন এবং কহিলেন, “এ সম্বন্ধে একবার ললিতার সঙ্গে আলােচনা করে দেখা কর্তব্য।”

 ললিতা আসিলে হারানবাবু তাঁহার গাম্ভীর্যের মাত্রা শেষ সপ্তক পর্যন্ত চড়াইয়া কহিলেন, “দেখাে ললিতা, তােমার জীবনে খুব একটা দায়িত্বের সময় এসে উপস্থিত হয়েছে। এক দিকে তােমার ধর্ম, আর-এক দিকে তােমার প্রবৃত্তি, এর মধ্যে তােমাকে পথ নির্বাচন করে নিতে হবে।”

 এই বলিয়া একটু থামিয়া হারানবাবু ললিতার মুখের দিকে দৃষ্টি স্থাপন করিলেন। হারানবাবু জানিতেন, তাঁহার এই ন্যায়াগ্নিদীপ্ত দৃষ্টির সম্মুখে ভীরুতা কম্পিত হয়, কপটতা ভস্মীভূত হইয়া যায়-তাঁহার এই তেজোময় আধ্যাত্মিক দৃষ্টি ব্রাহ্মসমাজের একটি মূল্যবান সম্পত্তি।

 ললিতা কোনাে কথা বলিল না, চুপ করিয়া রহিল।

 হারানবাবু কহিলেন, “তুমি বােধ হয় শুনেছ, তােমার অবস্থার প্রতি দৃষ্টি করে অথবা যে কারণেই হােক, বিনয়বাবু অবশেষে আমাদের সমাজে দীক্ষা নিতে রাজি হয়েছেন।”

 ললিতা এ সংবাদ পূর্বে শুনে নাই, শুনিয়া তাহার মনে কী ভাব হইল তাহাও প্রকাশ করিল না। তাহার দুই চক্ষু দীপ্ত হইয়া উঠিল, সে পাথরের মূর্তির মতাে স্থির হইয়া বসিয়া রহিল।

 হারানবাবু কহিলেন, “নিশ্চয়ই পরেশবাবু বিনয়ের এই বাধ্যতায় খুবই খুশি হয়েছেন। কিন্তু, এতে যথার্থ খুশি হবার কোনাে বিষয় আছে কি না সে কথা তােমাকেই স্থির করতে হবে। সেইজন্য আজ আমি তােমাকে ব্রাহ্মসমাজের নামে অনুরােধ করছি, নিজের উন্মত্ত প্রবৃত্তিকে এক পাশে

২৮
৪৩৩