পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৭৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


কাজ পৃথিবীর ভগীরথের— সে স্বর্গের লােকের কর্ম নয়। এই দুই কাজ একেবারে স্বতন্ত্র।’ অতএব অবিনাশের উৎপাতে গােরা যখন আগুন হইয়া উঠে তখন অবিনাশ মনে মনে হাসে, গােরার প্রতি তাহার ভক্তি বাড়িয়া উঠে। সে মনে মনে বলে, ‘আমাদের গুরুর চেহারাও যেমন শিবের মতাে তেমনি ভাবেও তিনি ঠিক ভােলানাথ। কিছুই বােঝেন না, কাণ্ডজ্ঞান মাত্রই নাই, কথায় কথায় রাগিয়া আগুন হন, আবার রাগ জুড়াইতেও বেশিক্ষণ লাগে না।’

 অবিনাশের চেষ্টায় গােরার প্রায়শ্চিত্তের কথাটা লইয়া চারি দিকে ভারী একটা আন্দোলন উঠিয়া পড়িল। গােরাকে তাহার বাড়িতে আসিয়া দেখিবার জন্য, তাহার সঙ্গে আলাপ করিবার জন্য লােকের জনতা আরও বাড়িয়া উঠিল। প্রত্যহ চারি দিক হইতে তাহার এত চিঠি আসিতে লাগিল যে চিঠি পড়া সে বন্ধ করিয়াই দিল। গােরার মনে হইতে লাগিল, এই দেশব্যাপ্ত আলােচনার দ্বারা তাহার প্রায়শ্চিত্তের সাত্ত্বিকতা যেন ক্ষয় হইয়া গেল, ইহা একটা রাজসিক ব্যাপার হইয়া উঠিল। ইহা কালেরই দোষ।

 কৃষ্ণদয়াল আজকাল খবরের কাগজ স্পর্শও করেন না, কিন্তু জনশ্রুতি তাঁহার সাধনাশ্রমের মধ্যেও গিয়া প্রবেশ করিল। তাঁহার উপযুক্ত পুত্র গােরা মহাসমারােহে প্রায়শ্চিত্ত করিতে বসিয়াছে, এবং সে যে তাহার পিতারই পবিত্র পদাঙ্ক অনুসরণ করিয়া এক কালে তাঁহার মতােই সিদ্ধপুরুষ হইয়া দাঁড়াইবে, এই সংবাদ ও এই আশা কৃষ্ণদয়ালের প্রসাদজীবীরা তাঁহার কাছে বিশেষ গৌরবের সহিত ব্যক্ত করিল।

 গােরার ঘরে কৃষ্ণদয়াল কতদিন যে পদার্পণ করেন নাই তাহার ঠিক নাই। তাঁহার পট্টবস্ত্র ছাড়িয়া, সুতার কাপড় পরিয়া, আজ একেবারে তাহার ঘরে গিয়া প্রবেশ করিলেন। সেখানে গােরাকে দেখিতে পাইলেন না।

 চাকরকে জিজ্ঞাসা করিলেন। চাকর জানাইল, গােরা ঠাকুরঘরে আছে।

 অ্যাঁ! ঠাকুরঘুরে তাহার কী প্রয়ােজন!

 তিনি পূজা করেন।

৫৬৫