পাতা:গোরা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৯৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।


আছে, শশিমুখীর বিয়ে আমি সেই দিনই দিয়ে দেব। গােরা, তােমাকে কিন্তু একটু উদ্‌যোগী হতে হবে। আর দেখাে, বিনয়কে কিন্তু আগে থাকতে সাবধান করে দিয়ো, সে যেন সেদিন না এসে পড়ে। অবিনাশ ভারি হিঁদু, সে বিশেষ করে বলে দিয়েছে। তার বিয়েতে যেন ওরকম লােক না আসতে পায়। আর-একটি কথা তােমাকে বলে রাখি ভাই, সেদিন আমার আপিসের বড়াে সাহেবদের নিমন্ত্রণ করে আনব, তুমি যেন তাদের তেড়ে মারতে যেয়াে না। আর-কিছু নয়, কেবল একটুখানি ঘাড়টা নেড়ে ‘গুড ঈভনিং স্যর’ বললে তােমাদের হিঁদুশাস্ত্র অসিদ্ধ হয়ে যাবে না- বরঞ্চ পণ্ডিতদের কাছে বিধান নিয়ো। বুঝেছ ভাই? ওরা রাজার জাত, ওখানে তােমার অহংকার একটু খাটো করলে তাতে অপমান হবে না।”

 মহিমের কথার কোনাে উত্তর না করিয়া গােরা চলিয়া গেল।


৭৬

সুচরিতা যখন চোখের জল লুকাইবার জন্য তােরঙ্গের ‘পরে ঝুঁকিয়া পড়িয়া কাপড় সাজাইতে ব্যস্ত ছিল এমন সময় খবর আসিল, গৌরমােহনবাবু আসিয়াছেন।

 সুচরিতা তাড়াতাড়ি চোখ মুছিয়া তাহার কাজ ফেলিয়া উঠিয়া পড়িল। এবং তখনই গােরা ঘরের মধ্যে আসিয়া প্রবেশ করিল।

 গােরার কপালে তিলক তখনাে রহিয়া গেছে, সে সম্বন্ধে তাহার খেয়ালই ছিল না। গায়েও তাহার তেমনি পট্টবস্ত্র পরা। এমন বেশে সচরাচর কেহ কাহারও বাড়িতে দেখা করিতে আসে না। সেই প্রথম গোরার সঙ্গে যেদিন দেখা হইয়াছিল সেই দিনের কথা সুচরিতার মনে পড়িয়া গেল। সুচরিতা জানিত, সেদিন গােরা বিশেষ করিয়া যুদ্ধের বেশে আসিয়াছিল-আজও কি এই যুদ্ধের সাজ!

 গােরা আসিয়াই একেবারে মাটিতে মাথা ঠেকাইয়া পরেশকে প্রণাম

৫৮৭