পাতা:গৌড়রাজমালা.djvu/৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
গৌড় ও কাশ্মীর।

হইতে কাশ্মীরের পথের কথাই বা কি বলিব, এবং মৃত প্রভুর প্রতি ভক্তির কথাই বা কি বলিব? গৌড়গণ তখন যাহা সম্পাদন করিয়াছিলেন, বিধাতার পক্ষেও তাহা সম্পাদন করা অসাধ্য।......অদ্যাপি রামস্বামীর মন্দির শূন্য দেখিতে পাওয়া যায়, এবং গৌড়-বীরগণের যশে পৃথিবী পরিপূর্ণ।”[১]

 প্রচলিত জনশ্রুতি অবলম্বনেই কহ্লণ এই বিবরণ লিপিবদ্ধ করিয়া থাকিবেন। সুতরাং ইহাকে অমূলক মনে করিবার কারণ নাই। কহ্লণ ললিতাদিত্যের অশেষ গুণগ্রামের এবং কীর্ত্তি-কলাপের বর্ণনা করিয়াও, তাঁহার দুইটি মাত্র দুষ্কার্য্যের উল্লেখ করিয়াছেন। প্রথম দুষ্কার্য্য,—সুরাপান-জনিত মত্ততা-বশে ললিতাদিত্য এক সময় প্রবরপুর (শ্রীনগর) দগ্ধ করিতে আদেশ দিয়াছিলেন। দ্বিতীয় দুষ্কার্য্য,—গৌড়পতি-বধ। অমুলক হইলে, অপ্রাকৃতের সম্পর্ক-বর্জ্জিত এই দুইটি ঘটনা, বিশেষতঃ বিদেশীর মাহাত্ম্য-সূচক গৌড়বধ-বৃত্তান্ত, চারিশত বৎসরকাল জনসাধারণের স্মৃতিপথারূঢ় থাকিত না। ললিতাদিত্য বা তাঁহার সেনা যে এক সময় গৌড়-সীমান্তে অবস্থিত মগধ পর্য্যন্ত পঁহুছিয়াছিল, কহ্লণ দিগ্বিজয়-বিবরণে তাহার স্পষ্ট উল্লেখ না করিয়া থাকিলেও, প্রসঙ্গান্তরে তাহার উল্লেখ করিয়াছেন। ললিতাদিত্যের মন্ত্রী চঙ্কুণ ললিতাদিত্যকে একস্থলে বলিতেছেন,—“মগধদেশ হইতে যে বুদ্ধ-মূর্ত্তি গজ-স্কন্ধে করিয়া আনা হইয়াছে, তাহা প্রদান করিয়া আমায় অনুগৃহীত করুন।”[২] অবান্তর প্রসঙ্গে উল্লিখিত মগধ হইতে এই বুদ্ধমূর্ত্তি আনয়ন-বিবরণ অবিশ্বাস করা যায় না; এই স্থানেই গৌড়-পতির সহিত ললিতাদিত্যের সম্বন্ধ সূচিত হইয়াছে।

 যশোবর্ম্মার সাম্রাজ্য-ধ্বংসের সঙ্গে সঙ্গে গৌড়ের সহিত কান্যকুব্জের সম্বন্ধ বিচ্ছিন্ন হইয়া গিয়াছিল। সম্ভবতঃ এই সুযোগে, এবং গৌড়াধিপ কাশ্মীরে নিহত হইবার পর, ভগদত্ত-বংশীয় হর্ষদেব, গৌড়মণ্ডলকে কেন্দ্র করিয়া, এক বিস্তৃত রাজ্যের প্রতিষ্ঠা করিয়াছিলেন। নেপালের রাজা জয়দেব-পরচক্রকামের ১৫৩ হৰ্ষ-সম্বতের [৭৫৮ খৃষ্টাব্দের] শিলালিপিতে এই হর্ষদেবের পরিচয় পাওয়া যায়। এই শিলালিপিতে উক্ত হইয়াছে,—জয়দেব ভগদত্ত-বংশীয় “গৌড়োড্রাদি-কলিঙ্গ-কোশল-পতি” হর্ষদেবের কন্যা রাজ্যমতীর পাণিগ্রহণ করিয়াছিলেন।[৩] বাণভট্টের “হর্ষচরিত” এবং আসাম প্রদেশে প্রাপ্ত তাম্রশাসন-নিচয় হইতে জানা যায়,—প্রাচীন কামরূপের নৃপতিগণ নরক এবং ভগদত্তের বংশধর বলিয়া আত্মপরিচয় দিতেন। হর্ষদেব সম্ভবতঃ কামরূপের

  1. क्व दीर्घकाल-लङ्घोध्वा शान्ते भक्तिः क्व च प्रभौ।
    विधातु रप्यसाध्यं तद्यद्गौड़ै र्विहितं तदा॥

    * * * * *


    अद्यापि दृश्यते शून्यं रामस्वामि-पुरास्पदं।”
    ब्रह्माण्डं गौड़-वीराणां सनाथं यशसा पुनः॥ (४৷३३२-५)

  2. “गजस्कन्धे धिरोप्येतम्मागधेभ्यो यदाहृतं।
    दत्वा सुगत-बिम्बं तज्जनीय मनुगृह्यताम्॥” (४৷२५८)”

  3. Indian Antiquary, Vol. IX, P. 178.

১৭