পাতা:গৌড়ের ইতিহাস (প্রথম খণ্ড).djvu/২৪১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

সপ্তম অধ্যায় । ミ> ○ সেন-রাজগণ এই সকল ব্রাহ্মণ লইয়া বিলক্ষণ ব্যতিব্যস্ত হইয়া পড়িয়াছিলেন। রাজ্যের সুশাসন রক্ষার প্রতি র্তাহারা অধিক মন দিতে পারেন নাই । মাধবসেন, ভ্রাতা কেশবসেনকে রাজ্য দিয়া হিমালয় প্রদেশে গমন করেন । কুমায়ুনের আলমোড়ার নিকটবৰ্ত্তী যোগেশ্বর মন্দিরের গাত্রে শিলালিপিতে মাধবসেনের কীৰ্ত্তি ঘোষিত হইয়াছে। মাধবসেনের সঙ্গে অনেক ব্রাহ্মণও তীর্থ ভ্রমণে যান। কেদার ভূমির বাণেশ্বর মন্দির মধ্যস্থ তাম্রশাসনে ভট্টনারায়ণের বংশীয় রুদ্র শৰ্ম্মার নাম দৃষ্ট হয়। “হুক্তিকর্ণামৃত” গ্রন্থে মাধবসেনের রচিত কবিতা পাওয়া যায়। মাধব সেন দশ বৎসর রাজত্ব করেন, এইরূপ শুনা যায়। কেশব সেন । কেশবসেন গৌড়রক্ষা করিতে না পারিয়া পূর্ববঙ্গে প্রস্থান করেন। ২১৫ খৃষ্টাব্দ পর্য্যস্ত কেশবসেন রাজত্ব করেন অনুমিত হয় । কেশবসেনের সঙ্গে অনেক ব্রাহ্মণ গৌড় প্রদেশ ত্যাগ করিয়া পূৰ্ব্ববঙ্গে গমন করেন। র্তাহার সভাসদ এড় মিশ্রের গ্রন্থে আছে,—মুসলমানেরা গৌড় ও নদীয়া অধিকার করিলে, কেশবসেন, পিতামহ প্রতিষ্ঠিত কুলীনগণকে সঙ্গে লইয়া, বিক্রমপুরে এক সেন-রাজার সভায় পলায়ন করেন। এড় মিশ্র, সেই রাজা কর্তৃক অনুরুদ্ধ হইয়া, বল্লালী-কুল-নিয়ম প্রণয়ন করেন। কিন্তু সেই রাজার নাম কি—তাহা এ পর্য্যন্ত স্থিরীকৃত হয় নাই । 峻 কেশবসেনের তাম্রশাসন পাওয়া গিয়াছে । এই তাম্রশাসন মাধব সেনের সময়ে লিখিত হয় ; কেশবসেনের সময় প্রদত্ত হয় ; তজ্জন্ত