পাতা:চিঠিপত্র (ত্রয়োদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৮০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রবীন্দ্রনাথ-সম্পাদিত পত্রিকাগুলির মধ্যে ভাণ্ডার’ পত্র একটি স্বতন্ত্র স্থান অধিকার করে আছে । এই পত্রিকায় বাংলাদেশের তৎকালীন রাজনৈতিক সামাজিক ও শিক্ষণসম্বন্ধীয় বিভিন্ন সমস্ত আলোচিত হয়েছে । প্রথম বছর ( বৈশাখ ১৩১২ ) রবীন্দ্রনাথ একাই সম্পাদনার দায়িত্বভার বহন করেছেন । দ্বিতীয় বর্ষের দ্বিতীয় সংখ্যায় সহকারী সম্পাদকরূপে প্রমথনাথ চৌধুরী যোগ দেন । কেদারনাথ দাশগুপ্তের উদযোগে ও অনুপ্রাণনায় রবীন্দ্রনাথ, ভাণ্ডারের সম্পাদন-দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন । সজনীকান্ত দাস র্তার ‘রবীন্দ্রনাথ : জীবন ও সাহিত্য’ ( ১৩৬৭ ) গ্রন্থে, ‘ভাওরের কাণ্ডারী রবীন্দ্রনাথ’ অধ্যায়ে এই পত্রিক প্রকাশে কেদারনাথের লক্ষ্য সম্বন্ধে লিখেছেন— “বিলাতী-বর্জন, স্বদেশীক্ৰব্যনিৰ্মাণ ও প্রচার তাহার [ কেদারনাথের } তদানীন্তন জীবনের মূল মন্ত্র ছিল । এই সদুদেশে ৭নং কর্ণওয়ালিস স্ত্রীটে 'লক্ষ্মীর ভাণ্ডার' স্থাপনা করা হইয়াছিল । তিনি অচিরাং উপলব্ধি করিলেন শুধু দেশী পণ্যের বিপণী খুলিলেই চলিবে না; দেশের লোককে স্বদেশীভাবাপন্ন করিবার জন্ত সাহিত্য ও শিক্ষার মধ্য দিয়া উৎ স্ক ও উৎসাহিত করিতে হইবে । “এই কাজে রবীন্দ্রনাথ অপেক্ষা যোগ্যতর ব্যক্তি তিনি দেশে দেখিতে পাইলেন না • • ** কাব্যগ্রন্থাবলী । মোহিতচন্দ্র সেন -সম্পাদিত, নয় খণ্ডে প্রকাশিত কাব্য-সংগ্রহ। প্রকাশকাল, ১৯৪৩-৪ খৃস্টাৰ । পত্র ৩১ । *কাল টেনেহলে এক প্রবন্ধ পাঠ করতে হয়েছিল ।” কলকাতা টাউন হলে ১ ভাদ্র ১৩১২ তারিখে রবীন্দ্রনাথ অবস্থা ওঁ ব্যবস্থা' নামে যে প্রবন্ধ পাঠ করেন, এই চিঠিতে তার উল্লেখ করেছেন । প্রবন্ধটি 'বঙ্গদর্শন’ পত্রিকার আশ্বিন ১৩১২ সংখ্যায় প্রকাশিত হয় ও ኟፍፃ Se|} \