পাতা:চিঠিপত্র (ত্রয়োদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৫৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


এই চিঠি থেকে জানা যাচ্ছে, বিদ্যালয়ের কোনো কোনো ছজিকে জাতীয় শিক্ষা পরিষদের পরীক্ষা দেওয়ার জন্ত পাঠানো হয়েছিল। পত্রে উপেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য ও অজিতকুমার চক্রবর্তীর মধ্যম ভ্রাতা মুজিতকুমার চক্রবর্তীকে সে বছর রবীন্দ্রনাথ পরীক্ষার্থীরূপে পাঠানোর জন্ত অনুমোদন করেছেন। অনুমান করা যায়, এই ব্যবস্থা স্বল্পকালই স্থায়ী হয় ।

  • তারকবাবুরা আমাকে ধরেছেন. সানোসান যদি তাদের টেকনিক্যাল বিদ্যালয়ের ছাত্রদের জুজুৎস্থ শেখান." ஒ জাতীয় শিক্ষণপরিষদের অন্যতম উদ্যোক্তা, প্রখ্যাত আইনজীবী স্তর তারকনাথ পালিত ১৯০৬ খৃস্টাৰে বেঙ্গল টেকনিক্যাল ইনষ্টিটিউট নামে কারিগরি শিক্ষার একটি বিদ্যালয় কলকাতায় আপার সাকুলার রোডে স্থাপন করেন ; পরবর্তীকালে এই প্রতিষ্ঠান যাদবপুরে স্থানান্তরিত হয় এবং এর নতুন নামকরণ হয় ‘কলেজ অব এঞ্জিনিয়ারিং অ্যাও টেকনোলজি’ । o

শাস্তিনিকেতন বিদ্যালয়ে সেইসময় রবীন্দ্রনাথ জুজুৎস্থ শিক্ষা ব্যবস্থার যে আয়োজন করেন, তার দৃষ্টাস্তে তারকনাথ তার টেকনিক্যাল বিদ্যালয়ের ছাত্রদের শিক্ষিত করতে উদযোগী হয়েছিলেন। সানো সান । কুস্বমতো । জাপানী জুজুৎস্থ-শিক্ষক সানো সান সম্বন্ধে মনোরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়কে লেখা রবীন্দ্রনাথের ৩৪-সংখ্যক পত্রের পরিচিতি অংশে (পৃ. ২৫৯ ) সংক্ষিপ্ত পরিচয় আছে। বিদ্যালয়ের তৎকালীন ছাত্র সত্যরঞ্জন বহু ‘রবীন্দ্রনাথ ও ত্রিপুরা’ (১৩৬৮) গ্রন্থে “আশ্রম-স্মৃতি” রচনায় লানো সান ও কুস্বমতো সম্বন্ধে যে স্থতিকথা লিখেছেন তা উন্থেত হল— “আমরা জুজুৎস্ব-বিশারদ সানো সান-এর কাছে জাপানী মল্পৰিভা শিক্ষা করি। কী স্বগঠিত গৌরবর্ণ দেহু অথচ সাধারণ জাপানীদের মত খৰ্ব্বাঙ্কতি নয়। শান্ত প্রকৃতি যুদ্ধভাৰী, কত যত্ন নিয়েই কুক্তি 889