পাতা:চিঠিপত্র (দ্বাদশ খণ্ড)-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৮৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


করব, আমার সেটা ভালো লাগে নি। তার কারণ, যেমন খিলাফতের লক্ষ্য ভারতবর্ষের বাইরে, অসহযোগের লক্ষ্য প্রায় তাই । ইংরেজরাজের সঙ্গে কোমর বেঁধে সহযোগই চালাই বা অসহযোগই জাগাই, তাতে আমাদের সাধনা কেন্দ্ৰভ্ৰষ্ট হয়। ওটা কলহমাত্র, সেই কলহের পরিণামে সার্থকতা নেই । মহাত্মাজি দেশের লোকের মনে যে প্রভাব বিস্তার করেছিলেন, অ : বড়ো প্রভাব অপর পক্ষকে তারস্বরে অস্বীকার করবার নঙথক উদেশে খরচ হয়ে যাচ্চে, এই কথা কল্পনা করে আমার মন পীড়িত হয়েছিল । সেদিন আমার মনে এই একাস্ত কামনা জাগছিল যে মহাত্মাজি নিজের চারদিকে দেশের বিচিত্র শক্তিকে আহবান কববেন দেশের বিচিত্র সেবার কাজে । কাৰণ, দেশের শিক্ষ। স্বাস্থা পূৰ্ত্তকাৰ্য্য বাণিজ্য— এই কৰ্ত্তব্যগুলিকে প্রবল বলে অকৃত্রিম নিষ্ঠার সঙ্গে চালনা করাই যথার্থ দেশকে লাভ করা, জয় কর । সকলে মিলে কেবল চরকায় স্থলে কাটায় দেশচিত্তের সম্পূর্ণ উদ্বোধন হতে পারেই না । ক্তানি এই সংকল্পে বাধার সম্ভাবনা যথেষ্ট ছিল – তখন সেই বাধার সঙ্গে সংগ্রাম করা সার্থক হোতো । এত দিন ধরে স: গ্রাম তো যথেষ্টই হোলো, দুঃখের তো অস্ত নেই। তার পৰিবৰ্ত্তে আজ রক্তহীন সাদা কাগজ পাওয়া গেল । সেই কাগজে শূন্তত যথেষ্ট কিন্তু রচনা কতটুকু ? সেই সময়ে আমি জগদানন্দকে যে চিঠি লিখেছিলুম আমাদের কোনো প্রাক্তন ছাত্র সেটি কপি করে রেখেছিল। আজ দৈবাৎ সেই কপি আমার হাতে পড়েছে। লেখাটি ר על צ