পাতা:জাপানে-পারস্যে-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৪৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।



 আমার শরীর ক্লান্ত তাই রাত্রের আহার একলা আমার ঘরে পাঠাবেন বলে এঁরা ঠিক করেছিলেন। রাজী হলুম না। বাগানে গাছতলায় দীপের আলােকে সকলের সঙ্গে খেতে বসলুম। এখানকার দেশী ভােজ্য। পােলাও কাবাব প্রভৃতিতে আমাদের দেশের মােগলাই খানার সঙ্গে বিশেষ প্রভেদ দেখা গেল না।

 ক্লান্ত শরীরে শুতে গেলুম। যথারীতি ভােরের বেলায় প্রস্তুত হয়ে যখন দরজা খুলে দিয়েছি তখন দুটি একটি পাখি ডাকতে আরম্ভ করেছে।

 যাত্রা যখন আরম্ভ হল তখন বেলা সাড়ে সাতটা। বাইরে আফিমের ক্ষেতে ফুল ধরেছে; গেটের সামনে পথের ওপারে দোকান খুলেছে সবেমাত্র। সুন্দর স্নিগ্ধ সকালবেলা। বাঁ ধারে নিবিড় সবুজবর্ণ দাড়িমের বন, গমের ক্ষেত, তাতে নতুন চারা উঠেছে। এ বৎসর দীর্ঘ অনাবৃষ্টিতে ফসলে তেজ নাই, তবু এ জায়গাটি তৃণে গুল্মে রােমাঞ্চিত।

 উপলবিকীর্ণ পথে ঠোকর খেতে খেতে গাড়ি চলেছে। উঁচু পাহাড়ের পথ অপেক্ষাকৃত নিম্নভূমিতে এসে নামল। অন্যত্র সাধারণত নগরের কিছু আগে থাকতেই তার উপক্রমণিকা দেখা যায়, এখানে তেমন নয়, শূন্যে মাঠের প্রান্তে অকস্মাৎ শিরাজ বিরাজমান। মাটির তৈরি পাঁচিলগুলাের উপর থেকে মাঝে মাঝে চোখে পড়ল পপলার, কমলালেবু, চেস্টনাট, এলম গাছের মাথা।

 শিরাজের গবর্ণর আমাকে সমারােহ করে নিয়ে গেলেন এক বড়াে বাড়িতে সভাগৃহে। কার্পেটপাতা মস্ত ঘর। দুই প্রান্তের দেয়াল-বরাবর অভ্যাগতেরা বসেছেন, তাঁদের সামনে ফল মিষ্টান্ন সহযােগে চায়ের সরঞ্জাম ছােটো ছােটো টেবিলে সাজানাে। এখানে শিরাজের

১০