পাতা:জাপানে-পারস্যে-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৮০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
৭০
জাপানে-পারস্যে

জলের মতাে স্তব্ধ। এ-পর্যন্ত ওদের যত কবিতা শুনেছি সবগুলিই হচ্ছে ছবি দেখার কবিতা, গান গাওয়ার কবিতা নয়। হৃদয়ের দাহ ক্ষোভ প্রাণকে খরচ করে, এদের সেই খরচ কম। এদের অন্তরের সমস্ত প্রকাশ সৌন্দর্যবােধে। সৌন্দর্য-বােধ জিনিসটা স্বার্থনিরপেক্ষ। ফুল, পাখি, চাঁদ, এদের নিয়ে আমাদের কাঁদাকাটা নেই। এদের সঙ্গে আমাদের নিছক সৌন্দর্যভােগের সম্বন্ধ—এরা আমাদের কোথাও মারে না, কিছু কাড়ে না-এদের দ্বারা আমাদের জীবনে কোথাও ক্ষয় ঘটে না। সেইজন্যেই তিন লাইনেই এদের কুলােয়, এবং কল্পনাটাতেও এরা শান্তির ব্যাঘাত করে না।

 এদের দুটো বিখ্যাত পুরােনাে কবিতার নমুনা দেখলে আমার কথাটা স্পষ্ট হবে:

  পুরােনাে পুকুর,

   ব্যাঙের লাফ,

    জলের শব্দ।

 বাস! আর দরকার নেই। জাপানি পাঠকের মনটা চোখে ভরা। পুরােনাে পুকুর মানুষের পরিত্যক্ত, নিস্তব্ধ, অন্ধকার। তার মধ্যে একটা ব্যাঙ লাফিয়ে পড়তেই শব্দটা শােনা গেল। শােনা গেল—এতে বােঝা যাবে পুকুরটা কী রকম স্তব্ধ। এই পুরােনাে পুকুরের ছবিটা কী ভাবে মনের মধ্যে এঁকে নিতে হবে সেইটুকু কেবল কবি ইশারা করে দিলে—তার বেশি একেবারে অনাবশ্যক।

 আর একটা কবিতা:

  পচা ডাল,

   একটা কাক,

    শরৎ কাল।