পাতা:জীবনীকোষ-ভারতীয় ঐতিহাসিক-প্রথম খণ্ড.pdf/৪২১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

8 R& ভারতীয়-ঐতিহাসিক অনুরাজ এবং তজ্জন্ত কোনওরূপ পরিশ্রমেই নারায়ণকে সাতগড় নামক স্থানে পশ্চাৎপদ হইতেন না। তিনি পরদুঃখ- রাজপদে অভিষিক্ত করেন। যদু পর কাতর, অমায়িক লক্ষুবৎসল, সদাশয় পুরুষ ছিলেন । ১৯৩৩ খ্ৰীঃ অব্দে জুলাই মাসে, মাত্র ৩৯ বৎসর বয়সে সন্ন্যাসরোগে তাহার মৃত্যু ঘটে । অনুজ নারায়ণ রায়—পাঠান রাজ শেরশাহ লাঙ্গলা দেশ অতিক্রমণ করিলে ভাদুড়িয়া একটাকিয়ার জমিদার অনুজ নারায়ণ রায় তাহার বগুত। স্বীকার করেন । শেরশাহ তাহীকে নিজ ক্ষমতায় প্রতিষ্ঠিত রাখেন। পরে দিল্লীর সম্রাট হুমায়ুনের বিরুদ্ধে শেরশাহ যখন যুদ্ধ যাত্রা করেন, তখন তিনি স্বীয় জ্যেষ্ঠ পুত্র মুকুন্দ নারায়ণকে পাচ হাজার সৈন্ত ও পাচ লক্ষ টাকা সহ, শেরশাহের সাহায্যার্থ প্রেরণ করি ছিলেন অনুপ নারায়ণ রায়, রাজা— তিনি ভাতুড়িয়ার জমিদার রাজা গণেশের পৌত্র ও যদু নারায়ণের ( পরে জালাল উদ্দিন । পুত্র । যদু নারায়ণ ১৪১৪-১৪৩১ সাল পর্য্যস্ত রাজত্ব করেন । তিন বৎসর রাজত্ব করার পর, যত্ন নারায়ণ মুসলমান ধৰ্ম্ম অবলম্বনপূৰ্ব্বক গোড়ের তৎকালীন নবাদের কষ্ঠা আসমান তারাকে বিবাহ করেন । তখন র্তাহার নাম হয় জালাল উদ্দিন । যদু নারায়ণের মাতা রাণী ত্রিপুরাসুন্দরী দেবী ও পত্নী রাণী নবকিশোরী, তখন যদুর একাদশ বর্ষীয় পুত্র অনুপ লোক গমন করিলে, র্তাহার মুসলমান পত্নীর গর্ভজা ত পুত্ৰ আহাম্মদ শাহ গোড়ের নবাব হন । আহাম্মদ শাহ ও অনুপনারায়ণের মধ্যে বিশেষ সদ্ভাপ ছিল । অনুপনারায়ণ ৬৪ বৎসর রাজত্ব করিয়া, পরলোক গমন করেন । অনুরাজ–চৌহান বংশীয় নরপতি বিশালদেবের পুত্র । এই অনুরাজ ঠইতেই হারকুল উদ্ভূত হইয়াছে। তিনি অশি দুর্গ প্রাপ্ত হইয়াছিলেন । তাহীর পুত্ৰ ইষ্টপাল আরব সাগর তীরবর্তী খিচিরপত্তনের প্রতিষ্ঠাতা । অনুরাজ মুসলমান আক্রমণ প্রতিরোধ করিতে অসমর্থ হইয়া নিজ জীবন ও অশি নগর শক্র করে অপণ করেন ( ১০১৫ খ্ৰীঃ অব্দ ) । অনুরাজ সিংহ–রাজপুতানার অন্তর্গত বুন্দির রাজা । তিনি দিল্লীর সম্রাট আওরঙ্গজীবের সমসাময়িক ছিলেন । রাও ভাও অপুত্রক ছিলেন তাহার ভ্রাতা ভীমসিংহের পৌত্র ও কিষণ সিংহের পুত্র অনুরাজ সিংহাসন প্রাপ্ত হইয়াছিলেন । সম্রাট আওরঙ্গ জীব দাক্ষিণাত্যে যে সকল অভিযান করেন, তাহার অধিকাংশগুলিতেই তিনি সম্রাটের অনুগামী ছিলেন। একবার সম্রাটের অন্তঃপুরবাসিনী মহিলাগণকে শত্র হস্ত হইতে উদ্ধার করিয়া, সম্রাটের