পাতা:দেবী চৌধুরানী - বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৩৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রথম খণ্ড-ষষ্ঠ পরিচ্ছেদ ". . هي o ব্ৰহ্ম। তোকে ব্রজ তাড়িয়ে দিয়েছে না কি ? - সা। তা নইলে আর তোমার আশ্রমে আসি আজ তোমার কাছে শোব। ব্ৰহ্ম। তা শো শো! এখনই আবার ডাক্বে এখন ! আহা! তোর ঠাকুরদাদা এমন বার মাস ত্রিশ দিন আমায় তাড়িয়ে দিয়েছে। আবার তখনই ডেকেছে—আমি আরও রাগ করে যেতাম না—তা মেয়েমানুষের প্রাণ ভাই! থাকতেও পারিতাম না । এক দিন হলো কি – সা। ঠানদিদি, একটা রূপকথা বল না। ব্র। কোনটা বলবো, বিহঙ্গম বিহঙ্গমার কথা বলবো একলা শুনবি, তা নূতন বেটা কোথায় ? তাকে ডাক না—দুজনে শুনবি। সা। সে কোথা, আমি এখন খুজিতে পারি না। আমি একাই শুনবো। তুমি & বল । প্রথঠাপ পাণী তখন সাগরের কাছে শুইয়া বিহঙ্গমের গল্প আরম্ভ করিলেন। সাগর তাহার আরম্ভ হইতে না হইতেই ঘুমাইয়া পড়িল। পহ্মঠাকুরাণী সে সংবাদ অনবগত, দুই চারি দণ্ড গল্প ঢালাইলেন ; পরে যখন জানিতে পারিলেন, শ্রোত্রী নিদ্রামগ্ন, তখন দুঃথিতচিত্তে মাঝখানেই গল্প সমাপ্ত করিলেন । পরদিন প্রভাত হইতে না হইতেই সাগর আসিয়া, ঘরের কুলুপ খুলিয়া দিয়া গেল। তার পর কাহাকে কিছু না বলিয়া ব্ৰহ্মঠাকুরাণীর ভাঙ্গা চরকা লইয়া, সেই নিদ্রামগ্ন বর্ষীয়সীর কানের কাছে ঘেমর ঘেনর করিতে লাগিল । - “কটাশ–ঝনাৎ” করিয়া কুলুপ শিকল খোলার শব্দ হইল—প্রফুল্ল ও ব্রজেশ্বর তাহ শুনিল। প্রফুল্ল বসিয়াছিল— উঠি দাড়াইল, বলিল, “সাগর শিকল খুলিয়াছে, আমি চলিলাম। স্ত্রী বলিয়া স্বীকার কর না কর, দাসী বলিয়া মনে রাখিও ।” ব্র । এখন যাইও না। আমি একবার কৰ্ত্তাকে বলিয়া দেখিব। প্র। বলিলে কি তার মন ফিরিবে ? ব্র। না ফিরুক, আমার কাজ আমায় করিতে হইবে। অকারণে তোমায় ত্যাগ করিয়া, আমি কি অধৰ্ম্মে পতিত হইব ? প্র । তুমি আমায় ত্যাগ কর নাই—গ্রহণ করিয়াছ । আমাকে এক দিনের জন্য শয্যার পাশে ঠাই দিয়াছ-—আমার সেই ঢের । তোমার কাছে ভিক্ষা করিতেছি, আমার মত দুঃখিনীর জন্য বাপের সঙ্গে তুমি বিবাদ করিও না। তাতে আমি সুখী হইব না। w 浏