পাতা:পণ্ডিত শিবনাথ শাস্ত্রীর জীবনচরিত.pdf/২৭৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


RB' শিবনাথ জীবনী । হৃষ্ঠাতা ছিল । শুভাক্তার লোকনাথ মৈত্র মহাশয় আপগণ্ড শিশুঃ गof>क्रिांकि রাখিয়া যখন পরলোক গমন করেন, 党博 সপ্তানদিগের জন্যও শিবনাথ এইরূপ ব্যাকুল হইতেন। লোকনাথ বাবুকে আমরা জ্যোঠামহাশয় বলিয়া ডাকিতাম। জানি না লোকে আপনার জ্যোঠামহাশয়কে এত আপনার ভাবে কিনা ? লোকনাথ বাবুর সন্তানগণ শিবনাথকে “কাকাবাবু বলিয়া ডাকিত-শিবনাথ তাদের “কাকা”র চেয়ে কিছুমাত্র কম ছিলেন না। এই যে পারকে আপনার করা, ইহার ভিতর কিছুমাত্র লৌকিকতা বা দূরত্ব छिछ नां । ১৮৮৯ সালের এপ্রিল মাসে শিলং ব্ৰাহ্মসমাজের সেলা হইতে কয়েকটি খাসিয়া ভদ্রলোক ব্ৰাহ্মধৰ্ম্মের বিষয় জানিবার জন্য ইচ্ছা প্ৰকাশ করে, শিলং ব্ৰাহ্মসমাজে সেই চিঠিখানি কাৰ্য্য নির্বাহক সভায় প্রেরণ করিলো-শিলং-এ ব্ৰাহ্মপ্রেচারক প্রেরণের বিশেষ আবশ্যকতা সকলে অনুভব করেন-সেই সময় হইতে শ্ৰীযুক্ত নীলমণি চক্ৰবৰ্ত্তী মহাশয় এই কাজের ভার গ্রহণ করেন। নীলমণি বাবু এই কাৰ্য্যে জীবন দিয়াছেন। ১৮৯০ সালের ১৬ই মে ব্ৰাহ্মা-বালিকাশিক্ষালয় প্রতিষ্ঠিত হয়। এই বিদ্যালয় প্ৰতিষ্ঠাবিষয়ে আনন্দমোহন বসু মহাশয়ের অপরিসীম উৎসাহ ছিল। শিবনাথ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হইবার কিছুদিন পূর্ব হইতেই শয়নে স্বপনে বিদ্যালয়ের চিন্তায় মগ্ন হইয়াছিলেন । সে একাগ্ৰতা, ব্যাকুলতা, ও উৎসাহের কথা এখনও আমার হৃদয়ে গঁথা আছে। বিদ্যালয়ের সরাঞ্জামের কথা যখন উপস্থিত হয় -আনন্দমোহন বস্তু মহাশয় বলিয়াছিলেন, “জ্ঞান শিক্ষার জন্য चांग्रांर्मिकांण हांतंत्र कत्रिंब, বিদ্যালয় নাম রাখিব না-a"মামার