পাতা:পত্রপুট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
৬০
পত্রপুট
 

দুই হাতের মধ্যে আমার হাত তুলে নিয়ে বললে,—
“তুমি চেনাে না আমাকে, তােমাকে চিনিনে আমি,
আজ পর্যন্ত কেমন ক’রে এটা হােলাে সম্ভব
আমি তাই ভাবি।”
আমি বললেম, “দুই না-চেনার মাঝখানে
চিরকাল ধ’রে আমরা দুজনে বাঁধব সেতু,
এই কৌতূহল সমস্ত বিশ্বের অন্তরে।”


ভালবেসেছি তাকে।
সেই ভালবাসার একটা ধারা
ঘিরেছে তাকে স্নিগ্ধ বেষ্টনে
গ্রামের চিরপরিচিত অগভীর নদীটুকুর মতাে।
অল্পবেগের সেই প্রবাহ
বহে চলেছে প্রিয়ার সামান্য প্রতিদিনের
অনুচ্চ তটচ্ছায়ায়।
অনাবৃষ্টির কার্পণ্যে কখনাে সে হয়েছে ক্ষীণ
আষাঢ়ের দাক্ষিণ্যে কখনাে সে হয়েছে প্রগল্‌ভ।
তুচ্ছতার আবরণে অনুজল
অতি সাধারণ স্ত্রী-স্বরূপকে
কখনো করেছে লালন, কখনাে করেছে পরিহাস,
আঘাত করেছে কখনাে বা।
আমার ভালবাসার আর একটা ধারা
মহাসমুদ্রের বিরাট ইঙ্গিতবাহিনী।
মহীয়সী নারী স্নান ক’রে উঠেছে
তারি অতল থেকে।