পাতা:পলাতকা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চিরদিনের দাগ শৈল যখন ছোটাে ছিল একদা মোর বাক্স খুলে দেখি, হিসাব-লেখা খাতার পরে একি হিজিবিজি কালির অাচড় ! মাথায় যেন পড়ল ক্রোধের বাজ । বোঝা গেল শৈলরই এই কাজ । মারা-ধরা গালি-মন্দ কিছুতে তার হয় না কোনো ফল— হঠাৎ তখন মনে এল শাস্তির কৌশল । মানা ক’রে দিলেম তারে তোমার বাড়ি যাওয়া একেবারে । সবার চেয়ে কঠিন দণ্ড ! চুপ করে সে রইল বাক্যহীন বিদ্রোহিণী বিষম ক্রোধে । অবশেষে বারে দিনের দিন গববিনি গর্ব ভেঙে বললে এসে, আমি আর কখনো কবব না তুষ্টামি । অ’াচড়-কাটা সেই হিসাবের খাতা, সেই কখানা পাতা, আজকে আমার মুখের পানে চেয়ে আছে তারি চোখের মতো ! হিসাবের সেই অঙ্কগুলার সময় হল গত— সে শাস্তি নেই, সে দুষ্ট নেই 5 রইল শুধু এই চিরদিনের দাগ শিশু-হাতের অর্গাচড় ক’টি আমার বুকে লাগা ! 〉●