পাতা:প্রায়শ্চিত্ত ১৯২০ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১০৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রায়শ্চিত্ত S. e6? ভয় মিটেছে বেঁচেছে সে— তারে কে আর পাড়বে ! উদয়াদিত্য। বৈরাগীঠাকুর, আমি তোমার সঙ্গ ধরলুম, আর ছাড়ছি নে কিন্তু । ধনঞ্জয়। তুমি ছাড়লে আমি ছাড়ি কই ভাই ? মনে বেশ আনন্দ আছে তো ? খুতমুত কিছু নেই তো ? উদয়াদিত্য। কিছু না— বেশ আছি । ধনঞ্জয়। তবে দাও একটু পায়ের ধুলো ! উদয়াদিত্য ও কী কর! ও কী কর । অপরাধ হবে যে । ধনঞ্জয় । দাদা, এত বড়ো বোঝা নিজের হাতে ভগবান যার কাধ থেকে নামিয়ে দেন সে যে মহাপুরুষ । তোমাকে দেখে আজ আমার সর্ব গায়ে কাটা দিচ্ছে। একবার দিদিকে আনে— তাকে একবার দেখি । উদয়াদিত্য । সে তোমাকে দেখবার জন্তে ব্যাকুল হয়ে আছে— তাকে ডেকে আনছি। বিভার প্রবেশ ও বৈরাগীকে প্রণাম ধনঞ্জয়। ভয় নেই দিদি, ভয় নেই, কোনো ভয় নেই। এই দেখ-না, আমাকে দেখ-না— আমি তার রাস্তার ছেলে— রাস্তার কোলে কোলেই দিন কেটে গেল, দিনরাত্রি একেবারে ধুলোয় ধুলোময় হয়ে বেড়াই, মায়ের আদরে লাল হয়ে উঠি । আমার মায়ের এই ধুলোদ্বরে আজ তোমার নতুন নিমন্ত্রণ, কিন্তু মনে কোনো ভয় রেখো না । বিভা। বৈরাগীঠাকুর, তুমি কোথায় যাচ্ছ ? তুমি কি আমাদের সঙ্গে বাবে ? १कु