পাতা:বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস (বৈশ্য কাণ্ড, প্রথমাংশ).djvu/১১৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১ম অংশ। ] বৈশ্ব সমাজের অভু্যদয় - > > ● রাজস্ব বা কৃষিপিভাগের অধ্যক্ষকে, জমির খাজান নিরূপণ করিবার সময় কি উপায়ে জমিতে জলসিঞ্চন করা হইয়া থাকে, তাহার দিকে লক্ষ্য রাখতে হইত। সাধারণতঃ রাজা উৎপন্ন শস্তের একচতুর্থাংশ রাজকর গ্রহণ করিতেন ; কিন্তু কোন কোন ক্ষেত্রে একপঞ্চমাংশও লইতেন, ইহা ছিল জমির বাবদ রাজস্ব। এতদ্ব্যতীত জলকর স্বরূপও কৃষককে তালার প্রায় এই পুরিমাণই রাজ কর দিতে হইত। ইহা ছাড়াও রাজা नकल প্রজার নিকট হইতেই আবশ্যকমত চাদ সংগ্ৰহ করিতেন। বিভিন্ন নামে ও বিভিন্ন কারণে প্রজাদিগকে রীতিমত বস্থ প্রকারের কর দিতে হইত । প্রাচীরবেষ্টিত সহর গুলিতে বাণিজ্য দ্রব্যের বিক্রয়লব্ধ অর্থের উপর বেশ রাজস্ব আদায় করা হইত। এই রাজস্ব যাহাতে সুচারুরূপে আদায় হইতে পারে, তৰ্জ্জস্য এই নিয়ম ছিল—যে দ্রব্য যেখানে উৎপন্ন কি প্রস্তুত হয়, সেখানে বিক্রয় করা হইবে না। আইন করা হইয়াছিল যে বিক্রেয় দ্রব্যাদি (শস্ত ও গবাদি পশু ভিন্ন ) সহরের সিংহদ্বারের মধ্যে মঞ্চগৃহের সন্নিকটে অনিয়া মজুত করিতে হইবে এবং সেখানে বসিয়াই বিক্রয় করা হইবে । বিক্রয়ের পূর্বে কর দিতে হইত না, কিন্তু বিক্রয় হইয়া গেলেই সেখানে বসিয়াই রাজকর দিয়া আসিতে হইত। শুল্কের হার নানা প্রকার ছিল । বাহির হই ত যে সকল দ্রব্যাদি অমিদানি করা হই ত, তাহার উপর সাত রকমের শুল্ক ছিল, মোটের উপর শতকরা কুড়িটাক হিসাবে শুল্ক দিতে হইত। শাক ফলমূল প্রভৃতি যে সকল দ্রব্য সহজে নষ্ট হইয়া যায়, তাহার উপর মূল্যের একষষ্ঠাংশ বা শতকরা ১৬ টাকা হিসাবে কর আদায় করা হইত। অষ্ঠান্য বহুবিধ বিক্রেয় দ্রব্যের উপরে শতকরা ৪ হইতে ১০ টtক পর্য্যন্ত রাজার প্রাপ্য ছিল । মণিমাণিক্যাদি বহুমুল্য জিনিষের মুদক্ষ জহুরীরা যে মূল্য নিৰ্দ্ধারণ করিয়া দিত, তাহার উপর রাজকর ধার্য্য করা হইত। বিক্রয় করিবার জন্য যে সকল জিনিষ আনা হইত, তাহার উপর সরকারী মোহর অঙ্কিত করা হইত। . প্রত্যেক সহরেই একজন নাগরক (নগরাধ্যক্ষ ) থাকিতেন।" প্রদেশে কয়জন নুতন লোক আসিল এবং এখান হইতে ক অন্যত্র চলিয়া গেল, তাহীর এক্ষ - লোকসংখ্যা নিৰ্দ্ধারণ করিয়া ভাইকে প্রত্যেক অধিবাসীর জাতি, শ্রেণী, নাম, উপাধি, ব্যবসায়, অয়, ব্যয়, এবং গবাদি পর্যায় ক্রমে একটা X & রাজস্ব दिल्लुङ्ग Swiग्न कम्न ८णां★ह***ोंनt