পাতা:বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৪৮১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিবিধ—উত্মাহরণ—১৮শ শতাব্দী। 8ఇవ কে জানে তোমাকে তুমি কোন স্থানে বৈস। এত বড় প্রাণ যে আমার ঘরে আইস ৷ আপন কল্যাণ চাহ যাহ নিকেতন। নহে আজি স্ত্রীর লোভে হারাবে জীবন। শুনি হরষিত বালা কামের নন্দন । কাম-জাল দূরে গেল বিয়রি শমন। হেন মনে লর মোর বধিতে পরগণ । মন্ত্রণা করিয়া মোকে আন্তাছে এ স্থান ৷ ছলছল করে আখি শুখায় বয়ান । বালা (১) বলে রাখ নহে বধ মোর প্রাণ ॥ তোমার কারণে প্রাণ নিরবধি বুরে । মৃত্যু যদি হয় তবে শোক যায় দূরে ৷ অন্য কেন ধরি মোকে করিবে দুৰ্গতি। তুমি স্বহস্তে বধহ প্রাণ শুন রূপবতী ॥ গদগদ ভাষে বালা সুন্দরীকে বলে। চান্দ-মুখ দেখি যেন মরিবার কালে ৷ নয়নে বহিছে নীর ছাড়রে নিশ্বাস । উষা বলে প্রাণনাশ পাইল বড় ত্ৰাস ॥ কপূর তাম্বুল বামা করিয়া যতন । হাসিয়া বালার মুখে দিলেন তখন। স্থির হও স্থির হও না করিয়ো ভয়। নেতের অঞ্চল দিয়া বদন মোছায় ॥ আপনি মজা কুল কাকে আছে ভয়। যাচিয়া যৌবন আমি বিকালু রাঙ্গা পায় ॥ (১) বালা প্রাচীন সাহিত্যে প্রায় সৰ্ব্বদাই বালক’ বা যুবকের পরিবর্তে ব্যবহৃত হইয়াছে।