পাতা:বর্ত্তমান বাঙ্গালা সাহিত্যের প্রকৃতি.pdf/৪৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


[ sa ] ইংবাজী লিখিতে পারুন আর নাই পারুন, য়ে মানমিক ধাতু বা মনের ভাব প্রকাশ করিবুর বুতি হইতে ইংরাজের ইংবাজী বচন্নার বিশেষত্ব উদ্ভূত হয, তাহাতে তাহা সংক্রমিত হইযা যায এবং তিনি বাঙ্গালাব স্যায বাঙ্গালা বচন কবিতে অক্ষম হইয পড়েন । ইংবীজেব মানসিক ধাতু প্রাপ্ত না হইলেও, ইংবাজী রচনাব বিশেষত্বেব প্রতি অত্যধিক দৃষ্টি বাথিবীব ফলে, “ ঐ বচনার বাতি তাহাব এতই অভ্যস্ত ও প্রিয হইয থাকে যে,আপন ভাষায বচনা কবিতে তাহার প্রবৃত্তিই হয না ; এবং প্রবৃত্তি হইলেও, ইংবাজী বচনাব প্রণালীতে আপন ভাষায বচন। কবা ভিন্ন তাহাব গত্যন্তর থাকে না । ইংবাজা বচনার্য হুনিপুণ তামাদেব এমন দুই এক জন পরলোকগত মহাত্মার বাঙ্গাল। বচনায একথার জাজ্জ্বল্যমান প্রমাণ বহিযাছে। কিন্তু ইংরাজী সাহিত্য ও বচনাব এত পক্ষপাতী হইলে, অধিকাংশস্থলে বাঙ্গালীব আপন ভাষায লিখিবর প্রবৃত্তিই হয না । যে দুই এক জন স্থত মহাত্মার উল্লেখ কবিলাম তাহাদেব সময়ে তাহাদেব স্বায বিদ্যাবুদ্ধি ও প্রতিভা সম্পন্ন আবও কতকগুলি বাঙ্গালীর অভু্যদয়