পাতা:বাংলার পাখি - জগদানন্দ রায়.djvu/১৫৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


እókም বাংলার পাখী ’কাল-পেঁচা বােধ হয় তোমরা দেখা নাই। हेशद्रा'कृब्रि বিশ্ৰী পাখী। গভীর রাত্ৰিতে যখন চারিদিক নিস্তব্ধ, তখন বাগানের গাছে বসিয়া এক মিনিট, বা আধ মিনিট অন্তর ইহারা “কু-কু” শব্দ করে। এই শব্দ ভয়ানক বিশ্ৰী শুনায়। আমাদের বাড়ীর কাছে একটা বট-গাছৈ প্রত্যেক রাত্ৰিতেই একটা কাল-পেঁচা ঐ রকমে ডাকিত। এই শব্দ শুনিয়া, কেন জানিনা বড় ভয় হইত। এক রাত্ৰিতে লাঠি হাতে DBDB gBDBD BD DuDBS DSDBB BDDBD দেখিতে পাই নাই। শুনিয়াছি, কাল-পেঁচাদের দেখিতে কতকটা কোটরে পেচাদেরই মতো। কেবল ইহাদের দুই কানের কাছে, দুই গোছা পালক উঁচু হইয়া থাকে। তাহা দেখিলে মনে হয়, যেন কাল-পেচাদের মাথায় শিং আছে। যাহা হউক ইহারা ভারি ভীরু পাখী, তাই দিনের বেলায় eBBD DD DDS SYDDBDS DBD DBBBB tBB বেড়ায়। ছাতুম পেচাদেরও সচরাচর দেখা বড় কঠিন। - ইহারা খুব বড় পাখী-আকারে প্রায় এক-একটা চিলের সমান। ইহাদের “হুম ছম” শব্দ শুনিলে রাত্ৰিতে বাস্তবিকই তয়৷ লাগে। হুতুম-পেঁচারা জলাশয় হইতে মাছ ধরিয়া খায়, ইহা শুনিয়াছি। পোচারা কাক ও শালিকদের মতো খড়কুটা দিয়া বাসা বঁধে না। তাই গাছের কোটর, দেওয়ালের ফাটাল উহাদের