পাতা:বাংলার পাখি - জগদানন্দ রায়.djvu/১৬১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


S88 বাংলার পাখী। বিকালে পশ্চিমে গাঢ় কালো মেঘ করিয়াছে,-বকেরা সারি বঁধিয়া বাসায় ফিরিতে আরম্ভ করিয়াছে । এই সময়ে কালো মেঘের গায়ে সাদা বকগুলিকে বড়ই সুন্দর দেখায়। তোমরা ইহা হয় ত দেখিয়াছ। তখন বকদের গায়ে যে সবুজ পালক আছে, তাহা মনেই হয়না। বকের রাত্ৰিতে কোথায় থাকে, তাহা বোধ করি তোমরা সকলে জানো না । কাক ও শালিকেরা যেমন গ্রামের বাহিরে কোনো একটা গাছে জমা হইয়া রাত কাটায় ইহারাও তাহাঁই করে। আমাদের গ্রামের পুকুরের ধারে একটা অশথ গাছে বকদের এই রকম এক 'N আডড ছিল। সন্ধ্যা হইলেই দলে দলে Ν N সেই গাছে আসিয়া বসিত, কিন্তু শালিকদের মতো তাহারা কখনই !ܠ ܐܛܠܸܔܼ কেঁচ বক। চীৎকার করিয়া ঝগড়া-বাটি করিত না। পরস্পর ঝগড়া করা বকদের স্বভাব নয়। আমাদের মধ্যে এক-একজন লোক আছে, যাহারা কোনক্রমেই ভোরে উঠিতে পারে না। যখন রোদ উঠে তখনও বিছানায় পড়িয়া থাকে, তার পরে অনেক বেলা হইলে উঠিয়া হাত-মুখ ধোয়। ভোরের আলো পূব-আকাশে দেখা দিবা মাত্ৰ,কাক,কোকিল ও শালিকের বাসায় বসিয়াই ডাফিতে সুরু করে এবং তার পরে অন্ধকার থাফিতে থাকিতেই ছুটিয়া চরিতে বাহির হয়। কিন্তু বকেরা কখনই তাহা করে না । ভোর বেলায় যখন