পাতা:বাংলার পাখি - জগদানন্দ রায়.djvu/১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


R বাংলার পাখী তাহাদের সাৰ খবর আমাদের জানিয়া রাখা উচিত নয় কি ? এই জন্য সাধারণ জানা-শুনা কতকগুলি পাখীর কথা তোমাদিগকে বলিব। সমস্ত পৃথিবীতে প্ৰায় পনেরো হাজার রকমের পাখী আছে। ইহাদের প্রত্যেকের আকৃতিতে ও চলাফেরায় পার্থক্য আছে। এতগুলা পাখীর বিবরণ দিতে গেলে তিন-চারিখানা প্ৰকাণ্ড বই লেখার দরকার হয় । তাই এই ছােটাে ৰইখানিতে তোমরা পৃথিবীর সব পাখীর পরিচয় পাইবে না। যেমন শরীরের গড়ন, গায়ের রঙ ইত্যাদি দেখিয়া মানুষদের নানাজাতিতে ভাগ করা হয়, তেমনি, পাখীদের আকৃতি ও চাল-চলন দেখিয়া তাহাদিগকেও কয়েকটি ভাগে ভাগ করা হইয়া থাকে। সব পাখীর চাল-চলন একই রকম নয়, ইহা তোমরা লক্ষ্য কর নাই কি ? কাক, বক, শকুন ও হাঁস, এই চারিটি পাখীর কথা বিবেচনা করা যাউক । ইহাদের প্রত্যেকেরই আকৃতি ও প্রকৃতি কি সমান ? কাকের গায়ের রঙ কালো, ইহারা মরা জন্তু, ফল-মূল সবই খায়। |ার কখনো গাছের ডালে বসে, কখনো-বা মাটির উপরে চরিয়া বেড়ায় । বকের গায়ের রঙ সাদা, ঠ্যাং লম্বা। ইহারা গাছের ডালে বসে বটে, কিন্তু প্ৰায়ই জলাশয়ের ধারে বেড়াইয়া জীয়ন্ত পোক-মাকড় ও মাছের খোজে ঘুরিয়া বেড়ায়। ইহারা ফল-মূল পছন্দ করে না। শকুন প্ৰকাণ্ড পাখী; ইহাদের মাথাগুলা নেড়া। ইহারা মরা জন্তু-জানোয়ার