পাতা:বিভূতি রচনাবলী (অষ্টম খণ্ড).djvu/১২৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


A obr বিভূতি-রচনাবলী তোমাদের এই সব সৌভাগ্য। উনি আমারও উধ্ব লোকের দেবী, দয়া করে আমায়— করুণাদেবী সলঙ্গ স্বরে বল্পেন—পুষ্প,শোনো তবে—উনি কে জানো? উনি গ্রহদেব বৈশ্ৰবণ। তোমাদের পৃথিবীর স্বাক্ট, স্থিতি, প্রলয়ের কর্তা। যুগযুগান্তর থেকে তার নির্দেশমত উনি তোমাদের পৃথিবী পরিচালনা করচেন। পূর্ব কল্পের দেবতা উনি। তার পূর্ব কল্পে উনি দেবযানপথে জন্মমৃত্যুর আবর্ত অতিক্রম করেন—বহুদূর পথের যাত্রী উনি। ওঁর স্বরূপে ওঁকে সত্যলোকের জীবেরাও দেখতে পায় না-চোখ বলসে যায় ওঁর তেজে। দয়া করে তোমাদের দৃষ্টির উপযুক্ত কায়া ধারণ করে দেখা দিলেন তাই দেখতে পাচ্চ । সন্ত্রমে, বিস্ময়ে, ভয়ে ও ভক্তিতে ক্ষুদ্র পৃথিবীর ছেলে-মেয়ে পুষ্প ও যতীন একেবারে নির্বাক্ হয়ে রইল। পুষ্প কি প্রশ্ন করতে চেয়েছিল তা ভুলেই গিয়েছিল, এই সময় মনে আসতে সে আবার হাতজোড় করে বল্পে—প্ৰভু, আমাদের জন্মান্তরে কত সৌভাগ্য ছিল যে আপনাদের সাক্ষাৎ•••একটা প্রশ্ন আমার আছে— বৈশ্রবণ বল্পেন—আমাকে ধন্যবাদ দিও না পুষ্প । কৃতজ্ঞতা জানাও সেই মহামহেশ্বর, বিশ্বব্ৰহ্মাণ্ডের অধিদেবতা যিনি, তাকে । আমরা তার ভূতাদের নির্দেশে চলি—তার দাসাচুদাস। এই অনস্ত কোটি ব্রহ্মাও তার ইঙ্গিতে চলে—অথচ কে জানে তাকে ? তোমাদের পৃথিবীর জ্ঞানী লোকেরা জানতেন—তাই বলে গিয়েচেন—অস্ত ব্ৰহ্মাগুস্ত সমস্তত: স্থিতান্ততাদৃশান্তনস্তকোটিব্ৰহ্মাণ্ডানি সাবরণানি জলস্তি—এই ব্ৰহ্মাণ্ডের আশেপাশে এই রকম অমস্ত কোটি ব্ৰহ্মাও আবরণের সহিত প্রজলন্ত অবস্থায় অবস্থিত। সে সব ব্ৰহ্মাও আমিও দেখিনি। তুমি যে পথিকদেবতার সাক্ষাৎ পেয়েছিলে, তার মত বিরাট দুর্ধর্ষ আত্মারা তার কৃপায় বহু সৌরমণ্ডল, বহু নীহারিকা, নক্ষত্রজগৎ অতিক্রম করে এই অনন্ত বিশ্বে ঘুরে বেড়াবার অধিকার ও শক্তি পেয়েচেন। বিগত কল্পে আর একজন এমন দেবদূতকে আমি জানতাম—তিনি পৃথিবীর এক আবর্তকাল অর্থাৎ প্রায় বাইশ হাজার বছর ধরে বিদ্যুতের অপেক্ষাও দ্রুতগতিতে পরিভ্রমণ করেও শুধু আমাদের এই ব্ৰহ্মাওটার কুলকিনারা পান নি। তা ছাড়াও তো অনন্তকোটিব্রহ্মাগুনি সাবরণানি জলস্তি - কোথায় তার ঠিকান, কোথায় তার কুলকিনারা, কোথায় তাদের সীমা ! এখন ভাবে, এই সমুদয় বিশ্ব যার ইঙ্গিতে চলেচে–পৃথিবীর ছেলেদের খেলবার ক্রীড়নকের মত বন বন করে ঘুরচে–র্তাকে কে জানতো যদি তিনি নিজের দয়ায় কৃপা করে— পুষ্প অনেকক্ষণ থেকে যে প্রশ্ন করতে চাইছিল, এবার তার স্বযোগ পেয়ে মরীয়ার স্বরে বল্পে—প্ৰভু, আমিও ঐ প্রশ্ন করতে চেয়েছিলুম-আপুনি অস্তধামী, বুঝতে পেরেই তার উত্তর দিলেন । আমিও জানতে চাইছিলুম ভগবানকে আপনি কি দেখেচেন ? দয়া করে আমার এই কৌতুহল— so করুণাদেবী এবার উত্তর দিলেন, কারণ গ্রহদেব তখন আপন ভাবে বিভোর । বিশ্বের ভগবানের কথা মনে ওঠাতে অন্ত প্রশ্নের দিকে র্তার মন ছিল না, যদি মন নামক অতি ক্ষুদ্র মাহুৰী ইঞ্জিয় তার মত বিরাট দেবতাতে আরোপ করা চলে। বল্পেন—না পুষ্প, উনি দেখেন নি। আমিও দেখি নি। অথচ তাকে অস্তুভৰ করেচি । তিনি কোথায় নেই ? বিশ্বের প্রতি বাপ