পাতা:বিভূতি রচনাবলী (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/২২১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তৃণাঙ্কুর S$6t এসে আমার চেয়ারের পাশে দাড়িয়ে কেঁদে ফেললে ; বললে, দেখুন স্কার, ওরা এত বড় বড় খড়ি নিয়ে যায় বড়িতে আর আমি এইটুকু নিলাম। আমার হাত মুচড়ে ও কেড়ে নিলে – হাতে এমন লেগেন্ধে ! ছোট ছেলের এ কান্না মনে বাঙ্গল। তখনি অবশ্বি মনিটারকে বকে খড়িটুকু দেবব্রতকে ফেরত দেওয়ালাম, কিন্তু দুঃথটা আমার মনে রয়েই গেল । সে কি অনন্ত ভূত দুঃখ ও মা ,নি বোধ !...দুপুরের রোদে ছাদে বেড়াতে বেড়াতে মনে হল ভগবান আমাকে এক পূর্ব ভাব-জীবনের উত্থান-পতনের মধ্যে দিয়ে নিয়ে যেতে চান বুঝি। তিনিই হাত ধরে আমাকে নিয়ে চলেছেন কোথায়, তার কোন উদ্বেগু সাধনের জন্য, তিনিই জানেন । অনন্ত জীবনের কতটুকু আমাদের সন্ত-দৃষ্টির নাগালে ধরা দেয় ? মনে হল বহুকাল আগে শৈশবে হার ঠাকুরদাদা সন্ধ্যাবেল আমাদের বাড়ির দরজ থেকে চাল চেয়ে B BBB BBB BB BBB BBBBSBBBBSBB BBB BB BBS BBBB BDDD BBB S gDD DSBBB BBSB BBB BB SBBB BBS g BB BB BB দিদিমার কাছে গুরস্কৃত হয়েছিলেন-ঠার গুরু এসেছিলে, তিনি যে আমাদের জন্তে গুরুর পাতের মাসের ঝোল ও কটি তুলে রেখে দিয়েছিলেন, যা তার খবর না জেনেই আমার দিয়েটিণেন মুড়ি নল গুঞ্জ। --সেই ঘটনা থেকে মায়ের পর এক অদ্ভুত স্নেহ ও gBBSBA SDg SB B BB BBBBBBS BBBB BBBBS BSBB BBB BBS BB DBBB BBB S BB DDBB BB BBSBS BBJSBBSBSS BB BB BBBB DD BBS BBB BBB BBB BBS BBB BB BB BBBB BB gg BB DD DS BBBS BB BBBB BBBB BB BBBS BBBBB BBBS BB BBB BBB BDDD জন্ত বেয়স আদেী কাল্পনিক নয়—তাদের সার্থকতা সেইখানেই । য’ গঃপর স্কুলে এক অদ্ভুত ব্যাপার হল। সন্ধা হয়ে গেল, আমি ছাদে নীরব BBS BSBJBB BB BBBBB BB BBBBB BBB BBBBSBB BB BBB BDDS বোধ, সে আনন্দের তুলনা হয় না—ভেবে দেখলাম এই আনন্দেই জীবনের সার্থকতা। কিসে থেকে তা আসে, সে কথা বিচারে কোনো সার্থকতা নেই আদেী,—আনন্দ ধে এসেটে, সেইটাই বড় কথা ও পরম সভ্য। অনেক দিন পরে এ লেখা পড়ে আমারই মনের নিরাননা ও ভাবশূন্ত মুহূর্তে আমার মনে হতে পারে যে, এ দিনের আনন্দ একেবারেই অবাস্তব ও মনকে চোখ-ঠাল্প শোছের হয়তো-নিরানন্দের দিনে এ কথা মনে হওয়া সম্পূর্ণ স্বাভাবিক বটে, কিন্তু এই খাতায় কালির চড়ে তা জানিয়ে দিতে চাই যে তা নয়, তা নয়। এ আনন্দ অপূর্ব অনহভূত অতীন্দ্রিয়, মহুর্নীয় –এ ধরনের গভীর বেদনামিশ্ৰিত ভাবোপলব্ধি জীবনে খুব কম করেচি। করেচি হয়তে সে-দিন মালিপাড়ায় মাজু পাতুনের উপর পুলিসের অভ্যাচার করার কথাটা খবরের কাগজে পড়বার দিনট—তারপর অনেকদিন হয় নি। সন্ধ্যার নিস্তব্ধ ও ধূসর আকাশের বহুদূর গ্রাস্তের আমাদের ভিটাটার কথা মনে হল একবার...বেশ দেখতে পেলাম সেখানে ঘন ছায়া পড়ে এসেচে—বমে সুগন্ধ উঠচে হেমস্তুের