পাতা:বিভূতি রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড).djvu/২৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নবাগত ❖ፃ বল্লে—আহা-হা, কোথায় লেগেচে ।--আপনি এই ভিড়ে মেয়েদের এনেচেন ? তাল করেন নি । আচ্ছা, আপনি ওঁকে নিয়ে বাইরে দাড়ান । দেখি আমি । সত্যই দেখা গেল জনতার মধ্যে আর কোন মেয়ে নেই—মেয়ের মধ্যে এক জাভা জার তার আড়াই বছরের খুকি--- অবিনাশ আভাকে ভিড়ের মধ্য থেকে বার করে এনে খানিকক্ষণ ফুটপাথে দাড় করিয়ে রাখলে । ঝাড় কুড়ি মিনিট কেটে গেল, কারে দেখা নেই। ওপর তালার খোলা জানাল দিয়ে নিচে বাজনার শব্দ যেন কানে আসচে । আভা অধীর ভাবে বল্লে—কই কেউ তো এল না ? ওপরে যাবে না ?--এইবার চলো দিকি সিড়ির ধারে ? অবিনাশ আর একবার চেষ্টা করতে গিয়ে দেখলে ভলাটিয়ারেরা কাউকে ওপরে যেতে দিচ্চে না। একজন বল্লে—মশাই, ওপরে মেয়েদের নিয়ে যেতে আপনাকে পরামর্শ দিই নে । মারামারি হচ্চে সেখানে । আর একটি মেয়েও নেই---কোথায় মেয়েদের নিয়ে যাবেন সেখানে ? অtভা লজ্জায় মরে গেল । ফিরবার পথে, রিকৃশায় উঠে তখন উত্তেজনা ও আগ্রহ কমে গিয়ে আভার ওপর অবিনাশের করুণ হ’ল । অতগুলো পুরুষের ভিড়ের মধ্যে সেজেগুজে সে থিয়েটার দেখতে এসেচে আশা করে, জানেও না আজকের আসাটা কতটা অশোভন দেখালো। কি ভাবলে সবাই••• ও দুঃখিত হয়েচে থিয়েটার দেখতে না পেয়ে ! স্ত্রীকে বল্লে—খুব লেগেচে নাকি কপালে ? দেখি ? দেখাও হ’ল না, কিছুই না—যাতায়াতে রিকৃশ ভাড়া ছ’আনা পয়সাই দণ্ড মিছিমিছি! আভা কিন্তু ভাবছিল তার আঁচলে-বাধা রাঙা টিকিট দুখানার কথা । কাল খুকীর বাব তাকেই রাখতে দিয়েছিল, আজ সে হুশিয়ার হয়ে আঁচলে বেঁধে এনেছিল টিকিট দুখান ! কত কষ্টে যোগাড় করা, কোনো কাজেই এল না, মিছামিছি গেল ! পার্থক্য সকাল হইতে ভিখিরীর উপদ্রব লাগিয়াই আছে । এদিকে ঘরে চাউল নাই, ক্রমশই কমিয়া আলিতেছে । গৃহিণী জানাইলেন, চাউল যা আছে তাহাতে আর দিন চারেক চলিবে । বাজারে চাউল নাই এ কথা বলিলে ভুল হইবে, আছে চোরাবাজারে, সাঁইত্রিশ টাকা মণ । গৃহিণীকে শুনাইয়া বলি–ভাতের ক্যানে যা কিছু সার অংশ থাকে। ফ্যান যে ফেলে দেওয়া হয় ওতে সত্যিই আমাদের বডড“মানে যা কিছু পুষ্টকর ওর সঙ্গে বেরিয়ে যায়। সাহেবেরা ফ্যান ফেলে না, জাপানীরা ফেলে না । আমার ইঙ্গিত বাড়ীর কেহই বুঝিল না। ঝরঝরে ভাতই খাইতে লাগিলাম। শুনিলাম আর ছুদিন চলিবে চাউলে । তার উপর ভিখিরী । সকাল হইতেই শো৯ וכ-ר .ft. H