পাতা:বিশ্বকোষ দশম খণ্ড.djvu/৬৯২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পত্তনীপ্ৰভু [موسوانها ] পঞ্জীপ্রস্তু

  • -

জামাইলেন । প্রভূদিগের প্রতি দুর্ব্যবহারের কথা শুনিয়া নানা ফন্তু নবিসও বিচলিত হইয়াছিলেন এবং ভবিষাতে তাহদের প্রতি ব্ৰাহ্মণের আর কোন প্রকার অত্যাচার লা করেন, তাহাও ঘোষণা করিলেন । এত দিনের পর ব্রাহ্মণ প্রভুর বিবাদ মিটিয়া গেল । প্রভুগণ গোড়া হিন্দু। বসাই প্রভৃতি স্থানের ব্রাহ্মণের । উছাদের প্রতি যথেষ্ট অত্যাচার করিলেও তাঁহাদের হৃদয় হইতে ব্রাহ্মণগুক্তি কিছুমাত্র হ্রাস হয় নাই । তাহার শাস্ত্রীয় ! বিধানাচুসারে ক্ষত্রিয়োচিত সকল সংস্কারই পালন করেন । প্রভুদিগের মধ্যে বিবাহ, গর্ভাধান, পুংসবন, সীমস্তোন্নয়ন, জাতকৰ্ণ, নামকরণ, শিক্ষায়ণ, অন্নপ্রাসন, চুড়াকরণ, উপনয়ন ৰ মেীবন্ধন, সমাবর্তন ও অস্ত্যেষ্টি এই সংস্কায়গুলিই প্রধান । প্রভূীিগের মধ্যে বাল্যবিবাহ আদরণীয়। কস্তা ও বরের এক গোত্র হইলে বিবাহ হয় না। বালকের ১ • হইতে ১৬ এবং কঙ্কায় ৪ হষ্টতে ৮ বর্ধ মধ্যে বিবাহ হয়। পূৰ্ব্বকালে ইহাদের মধ্যে ৮ প্রকার বিবাহ প্রচলিত থাকিলেও এখন কেবল ব্রাহ্ম ইছাদের বিবাহ-ব্যাপার বহু বায়সাধ্য ও বহুদিন সাপেক্ষ । বিবাহে এত অমুষ্ঠান আর কোন জাতির মধ্যে দেখা যায় মা ! পাত্র পছন্ম হইলে কষ্ঠাপক্ষীয় পুরোহিত গিয়া প্রথমে বরকর্তার ! নিকট ক্ষণ পাড়েন । বরকর্তার অভিমত হইলে বর ও কল্প | উভয়ের কোট মিলাইয়া দেখহর। উভয়ের কোষ্ঠ মিলিলে । ও দেন পাওনা স্থির হইলে তিথি ও লগুস্থির করা হয়। তিখিনিশ্চয় বা লগ্নপত্র নির্ণয় কার্য বরের বাড়ীতে রাত্রি । ৮৯টায় সময় সম্পন্ন হয় । বিবাহের প্রায় একপক্ষ পূৰ্ব্বে নিমন্ত্রণ হইতে থাকে। প্রথমে জ্ঞাতিকুটুম্ব স্ত্রীপুরুষ উভয় পক্ষেরষ্ট নিমন্ত্রণ হয়। প্রায় সপ্তাহ থাকিতে কষ্ঠার মাতা দুই একটা ছেলে ও চাকর সঙ্গে লইয়া বরের মাতা ও তাহtয় জ্ঞাতি-কুটুম্বিনীদিগকে নিমন্ত্রণ করিতে আলেন । বিবাহের চারি দিন থাকিতে বরের মাত৷ কস্তার মাতাকে বলিয়া পাঠান, ‘কাল ফুলদান হইবে।’ পরদিন বরের মা একটী বালককে সাজাইয়া কম্ভাকে জানিতে *ार्टॉम । कछ नाना अशकाग्न ७ मशभूना दमयन विफूषिष्ठ ছইয়৷ পান্ধী বা গাড়িতে চাপিয়া প্রায় দ্বিপ্রহরকালে বরের বাড়ীত্তে জালে। বরের মাতা প্রভৃতি রমণীগণ গিয়া কোলে করিয়৷ কটাকে মামাইয়া আনে। এখানে পানীহারের পর परब्रध्न मांड कछांटक गाँषाभङ अलड़ांग्न ७ छांश कांनए निद्र जाबाहेब tनन ७ क्षांठिकूप्लेषजमनैमिश्रेररु tनथाहेtउ नहेब्र घान्न । फेछइ भएकङ्ग झुक्केश्वेन झछोप्क cकोष्ण कब्रिग्न বিবাহই প্রচলিত দেখা যায়। ox- *-*T*T তোমার শাগুন্টু কি দিয়াছে, এই কথা জিজ্ঞাসা করে। দেখা रामांद्र नझा छेरौौर्ण झ्द्र ।। 6ननिनई नृकrांब्र शृग्न कछ बिांलरङ्ग চলিয়া জাসে । পর দিন বর ও কণ্ডীর মত সাজিয়া গুজিয়। কল্পার বাড়ীতে যায় । কস্থাপক্ষ হইতে বরও উৎকৃষ্ট বেশভূষা পায়। এখন আবার ইংরাজী সভ্যতা প্রবেশ করায় অনেক বর উৎকৃষ্ট পোষাকের সহিত আবার কোচ, কেদার আসবাব ও বিলাতী জুতা পাইলা থাকে। যথা সমরে বর নিজ গৃহে চলিয়া আসে। পরদিন আহার ও ব্যবহারোপযোগী জিনিসপত্র সংগৃহীত ও বিবাহমণ্ডপ নিৰ্ম্মিত হয়। বিবাহের দুই এক দিন থাকিতে গাত্রহরিদ্র হয় । পাঁচ জন সধবা মিলিয়া উদুখলে হলুদ কুটিয়া থাকে। তৎপরে জালিপন দেওয়া একখানি ছোট চৌকির উপর বরকে বলাইরী একজন সধবা ৰtটতে সেই হলুদ গুলিয়া বরের কপালে লাগাইয়। দেয়। পরে পাঁচজন আপনাপনি একটু হলুদ মাখিয়া ধনে ও গুড় খায় ; দালানের একধারে আলিপন কাটিয়া তাহার উপর একখানি চৌকি থাকে, ৪ জন সধবা ৪ কলসী জল আনিয়া চৌকির চারিপাশে রাখে । ক একটা জাম্ৰপত্র কলসীর মুখে দিয়া চারি ধারে স্বতা দিয়া খিরিয়া দেয়, পরে বরকে অনিয়া সেই চৌকির উপর বসাইয়া রাখে। এই সময়ে বাত্মকরের বাঙ্গাইতে থাকে ও বালিকার গান করে। গান শেষ হইলে যে বালিকা প্রথমে গায়ে হলুদ দিয়াছিল, সে বরকে স্নান করাইয়া দেয়। মানের পর বর নুত্তন কাপড় ও আইবুড়-ফুলের মালা পরে, পায়ে আলঙ্গ দেয়। বালিকার দীপালোকে তাহাকে বরণ করে। কস্তার বাড়ীতেও ঠিক্ এইরূপ হইয়া থাকে। এখন হইতে বরকস্তা ‘নবরদেব' অর্থাৎ বিবাহের দেবতা বলিয়া গণ্য হয় ও বিবাহের ৪ দিন শেষ ন হইলে আর বাড়ীর বাহির হইতে পায় না। এই দিন অপরাহ্লে গণেশ, বিবাহমণ্ডপ, বরুণদেবতা, পিতৃগণ ও নবগ্রহের পূজা, কুমড়াবলি ও ডুমুরবলি হয়। কুমড়াবলি উৎসবের নাম “কহুল্যমুহূৰ্ত্ত", এই সময় বরেয় ভগিনীপতি বা কোন বিবাহিত আtীর তরবারি দ্বারা কুমড়াট দ্বিখণ্ড করিয়া কাটিয়া ফেলে । যে কুমড়া কাটিবে, তাহার কাধে সাল ও পিছনে তাহার স্ত্রী থাকে, এইভাবে উভয়ে বিবাহুমণ্ডপে উপস্থিত হয়। একজন সধবা আসিয়া দম্পতির (পরস্পরের) সালের অগ্রভাগ লইয়া গাটুছড়া বাধিয়া দেয়। পুরোহিত তরবারি লইয়া সেই ব্যক্তিত্ব হাতে দিলে সে এক কোপে কুমড়া দুই খণ্ড করিয়া ফেলে। স্ত্রী কুমড়ার গায় হলুদ মাখাইয়৷ পিছন ফিরিয়া দাড়ায় । স্বামী স্থই কোপে কুমড়াট চারি খণ্ড করিয়া ফেলে, পরে তাহার রমণী আলিয়৷ আলো জালিরা তাহাকে বরণ করে । ,