পাতা:বিশ্বকোষ পঞ্চম খণ্ড.djvu/১৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ग्रंक्रांयाँहै। গঙ্গালাভ (পুং) গঙ্গার লাভ গ্রাপ্তি আতং। গদাগ্রাপ্তি, গঙ্গা পাওয়া, গঙ্গার গর্ভে জ্ঞানপূর্বক প্রাণত্যাগ। গঙ্গাযাত্রিক (ত্রি) ১ যে রোগীকে গঙ্গাযাত্রা করাইবার উপযুক্ত । ২ যোগাদি উপলক্ষে যাহারা গঙ্গাস্নানার্থ গমন করে। ( পুং ) ৩ গঙ্গাদেবীর উৎসব। গঙ্গালহরী (স্ত্রী ) গঙ্গায়া লহরী ৬তৎ । ১ গঙ্গার তরঙ্গ । ২ প্রসিদ্ধ পণ্ডিত জগন্নাথ তর্কপঞ্চানন প্রণীত গঙ্গাস্তব। গঙ্গাবংশ, দক্ষিণাপথের এক প্রবল প্রাচীন রাজবংশ। এই বংশ সময়ে সময়ে কলিঙ্গ, মহিন্থর, উৎকল, শিবসমুদ্র, উন্মতুর প্রভৃতি স্থানে রাজত্ব করিতেন । কেরলের উত্তরাংশে ইহারাই কোঙ্গু নাযে প্রসিদ্ধ ছিলেন । [ কোঙ্গু ও চের দেখ। ] কদম্বরাজ মৃগেশবৰ্ম্মার সময়ের খোদিত শিলাফলক পাঠে জানা যায় যে তিনি খৃষ্টীয় ৬ষ্ঠ শতাব্দীতে গঙ্গাবংশীয় রাজগণকে পরাস্ত করিয়াছিলেন । আবার দেবগিরি হইতে প্রাপ্ত তাম্রশাসনপাঠে বোধ হয় যে, উপরোক্ত কদম্বরাজের পূৰ্ব্বে ও রাজা কৃষ্ণবৰ্ম্ম। গাঙ্গেয়রাজ মাধব (২য়)কে নিজভগিনী সম্প্রদান করেন । খৃষ্টীয় নবম শতাবো পূৰ্ব্বচালুক্যরাজ্যে অরাজক চওয়ায় গঙ্গাবংশীয় রাজগণ আবার প্রবল হইয়া উঠিয়াছিলেন। খৃষ্টীয় দশম শতবে এই বংশের আধিপত্য বৃদ্ধি হয়। এই সময়ে গঙ্গাবংশীয় জয়বৰ্ম্মদেব ও তৎপুত্র অনন্তবৰ্ম্মদেবই (৯৮৫ খৃঃ অ: ) প্রধান । কলিঙ্গের গঙ্গাবংশীয় রাজগণ অতি প্রাচীন, চালুক্যরাজগণের অভু্যদয়ে ইহাদের প্রতাপ কতকটা থৰ্ব্ব হয় । কেশরী’বংশের অবসানে ১১৩২ খৃষ্টাব্দে গঙ্গবংশীয় চোরগঙ্গা উৎকলে রাজত্ব করিতে থাকেন, ইনিই উৎকলের প্রথম গঙ্গবংশীর রাজা। ১৫৩৪ খৃষ্টাব্দে এই বংশের অবসান হয়। গঙ্গাবলী, উত্তর কানাড়ার গঙ্গাবলীনদীর মোহানাস্থিত একটা বন্দর। অক্ষা ১৪° ৩৬' উঃ, ড্রাঘি ৭৪° ২১ পূঃ। এখানে বাহাদুরী কাষ্ঠের আড়ং আছে। গঙ্গাদেবীর মন্দিরের জন্য এই স্থান প্রসিদ্ধ ও হিন্দুর একট তীর্থ বলিয়া গণ্য । গঙ্গাবাই, একজন বিখ্যাত মহারাষ্ট্রমহিলা, পেশগ নারায়ণরাওর পত্নী। ১৭৭৩ খৃষ্টাব্দে ৩০এ আগষ্ট কতকগুলি সৈন্ত বেতন পায় নাই বলিয়া ক্রোধে উন্মত্ত হইয়া অষ্টাদশ বর্ষীয় নারায়ণরাওকে খুন করে । লোকের বিশ্বাস রঘুনাথরাও বা রাঘবার উত্তেজনাতেই এই কাও ঘটে। কেহ বলেন, রঘুনাথের -- পত্নী আনন্দ বাইয়ের কৌশলেই এই নিষ্ঠুর কার্য সুধিত হয়। [নারায়ণরাও দেখ। ] নারায়ণরাওর মৃত্যুর পর রঘুনাথরাও পেশবার কুইয়া বহিঃশত্রুর সহিত যুদ্ধবিগ্রহে ব্যাপৃত হই লেন। রঘুনাথের অনেকগুলি প্রধান ব্যক্তি নানা অছিলায় v 1 دند] 8S গঙ্গাবাই যুদ্ধস্থল হইতে পুনরায় ফিরিয়া আসিলেনণ সখারাম বাপু, बिषकब्राँ७ मांभ, नांन-कफ़्नदिन्, cयांtब्रांया कफ्नविन्, বজাব পুরন্ধর, আননারাও জিবাজী, হরিপস্তফড়কে প্রভৃতিকে লইয়া পুণায় একটা মন্ত্রিসভা গঠিত হইল, তন্মধ্যে নানা-ফড়নবিস ও হরিপস্তফড়কে প্রধান। তাহার রঘুনাথের বিপক্ষ । অল্পদিন মধ্যেই প্রকাশ হইল যে, নারায়ণরাওর মৃত্যুর পূৰ্ব্বে তদীয় পত্নী গঙ্গাবাই গৰ্ত্তবতী হইয়াছেন। পাছে কেহ তাহার অনিষ্ট করে, সেইজষ্ঠ মন্ত্রীগণ পরামর্শ করিয়া তাহাকে পুরস্করে পাঠাইবার বন্দোবস্ত করিলেন। ১৭৭৪ খৃষ্টাব্যে ৩৯এ জানুয়ারি, নানা-ফড়নবিস ও হরিপস্তফড়কে গঙ্গাবাইকে পুরন্ধরে লইয়া গেলেন। সদাশিবরায়ের বিধবা প্রভাবর্তী সাধারণের শ্রদ্ধাস্পদ ছিলেন । তাহাকে গঙ্গাবাইয়ের সঙ্গে পাঠান হইল। পুরস্করের দুর্গ ১১৩২ হস্ত উচ্চ একট পৰ্ব্বতোপরি অবস্থিত । পুরস্করের দুর্গে লইয়। যাওয়ার নানা কারণ আছে । পুণর চারিদিকে শত্রপক্ষীয় লোক । সেজন্য বিধবা গঙ্গাবাইয়ের উপর অনিষ্টপাতের আশঙ্কা ছিল । গঙ্গাবাইয়ের নিকটে কএকটী সদ্যপ্রস্থত। পুত্রবর্তী রমণীকে রাথিয়া দেওয়া হয়। গঙ্গাবাইয়ের যদি পুত্রসন্তান হর, আর গঙ্গাবাইয়ের স্তনে যদি যথেষ্ট দুগ্ধ না জন্মে, তাহা হইলে ইহাদের স্তনাদুগ্ধে বালকের জীবনরক্ষণ হুইবে । আর যদি গঙ্গাবাইয়ের গর্ভে কন্যাসন্তান জন্মে, তাহা হইলে গোপনে অন্যের পুত্রসন্তান গঙ্গাবাইয়ের কন্যার সহিত পরিবর্তন করিয়া লওয়া হইবে । গঙ্গাবাইয়ের গৰ্ত্তে পুত্রসন্তান জন্মিলে সেই প্রকৃত পেশব হইবে । তাহা হইলে রঘুনাথরাওর ক্ষমতা থৰ্ব্ব হইবে । মন্ত্রিগণ এই পুত্রের অাশায় নির্ভর করিয়া গঙ্গাধাইয়ের নামে পেশবার কার্য্য চালাইতে লাগিলেন । রঘুনাথরাও কর্ণাটে ছিলেন। তথায় তিনি এই সকল ংবাদ পাইয়া পুণাভিমুখে যাত্রা করিলেন। পথে একটা যুদ্ধে তাহার ৬য় হয় । কিন্তু তিনি পুণ অভিমুথে না আসিয়া উত্তরাভিমুথে গমন করিলেন । ১৭৭৪ খৃষ্টাব্দে ১৮ই এপ্রেল, শুনিলেন যে গঙ্গাবাইয়ের পুত্রসস্তান জন্সিয়াছে। রঘুনাথ মলবারে গমন করিলেন। গঙ্গাবাইয়ের পুত্র ৪• দিনের হইলে সেই শিশুই মাধবরাও নারায়ণ বা মধুরাও নারীয়ণ নামে অভিহিত হইয়া পেশবার পদে অভিষিক্ত হইলেন। ইনি পরে সভাই মাধবরাও নামে অভিহিত হইয়াছিলেন। মাধবরাও জন্মসময়ে রামুসিদিগের অত্যাচারে বিষম উৎপীড়িত হন। রামুসির দলে অশ্বারোহী সেন ছিল । উহার বণিকবেশে গমন করিয়া হায়দ্রাবাদ ও বেরারে লুণ্ঠন