পাতা:বিশ্বকোষ প্রথম খণ্ড.djvu/৪৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অক্ষপটল [રહ ] অক্ষপ্লটল । খেলায় নিপুণ। প্রতারক। শখোট বৃক্ষ। অক্ষধুলি (পুং ) অক্ষ-ধূৰ্ত্তি-লা-ক। [ অংক্রিপ দেখ ]। বৃষ । অক্ষন ( ক্লী) অক্ষ-কনিন। নেত্র। চক্ষুঃ। অক্ষপটল, অক্ষিপটল (ক্লী) অল্প; চক্ষুষ: পটলমিৰাবরণম্। ছানি। চক্ষুরোগবিশেষ । চক্ষুর স্বচ্ছ দর্পণের স্তায় পুত্ত#3 Goiâ (leuticular crystaline lens.) fowl তাহার আবরকের উপর ( capsular, capsule) কিম্বা est stoïst Boltz (capsule lenticular) grafi আবরণ পড়ে, তাহাতেই দৃষ্টিশক্তি রুদ্ধ হইয়া যায় । এই আবরণ সিরস (serous) রসে পূর্ণ। ছানি নানা প্রকার। তন্মধ্যে কঠিন ও কোমল ছানি FISFtST CRAi TfR I FfFR Effx ( suffusio dura ) দেখিতে কটাবর্ণ । ইহা বৃদ্ধলোকের হইয় থাকে। CFfRz Etft (suffusio mollis) frfæE #TzIF আভাযুক্ত এবং ইহার আকারও অপেক্ষাকৃত বড়। গর্ড হষ্টতেই কোন কোন শিশুর চক্ষে ছানি পড়িয়া থাকে। মস্তকে ও চক্ষুতে আঘাত লাগিয়া অনেকের ছানিরোগ জন্মিয়াছে। কোন কোন বালকের চক্ষে শাদা ফুধের মত ছানি পড়ে। শয়ন করিলে, মস্তক ঘুরাইলে ফিরাইলে, ঐ ছানি এদিক্‌ ওদিক্‌ চলিয়া বেড়ায় । ছানির কারণ এক প্রকার নয় । দৈহিক দুৰ্ব্বলতা; প্রস্রাবের পীড়া; চক্ষু ও মস্তকে আঘাত বালকদের দড়কারোগ; কৌলিক লেহম্বভাব অর্থাৎ পিতার ছানিয়োগ থাকিলে পুত্রদেরও প্রায় ছানিরোগ হইয়। থাকে। তীব্র আলোকের প্রতি চাহিলে অনেক স্থলে ছানি জন্মে। অত্যন্ত স্বল্প কাজে সৰ্ব্বদা দৃষ্টি চালনা করিলেও ছানিরোগ হয় । ভেককে চিনি, লবণ ও সুর কিছুদিন থাইতে দিলে তাহার ছুটী চক্ষেই ছানি পড়ে। ছানির এই কয়েকপ্রকার চিকিৎসা চলিত আছে,— এলোপ্যার্থী-ছানির প্রকৃত চিকিৎসা আজও আবিস্কৃত হয় নাই। এলোপ্যার্থী ডাক্তারেরা সৰ্ব্বাদে সুপথ্যের ব্যবস্থা করেন—দুগ্ধ, ডিম্ব, মাংস, কড়লিবর তৈল ও মাল্ট ইত্যাদি। সেবনের ঔষধ—সিরপ অব ফেরি আওডিড় ১• বিন্দু মাত্রায় অৰ্দ্ধছটাক জলের সঙ্গে প্রত্যহ দুইবার সেবন করিবে। কিন্তু আওডিড্‌ অব পটাস্ দুই রতি, ব্রোমাইড অব পটাস দুই রতি, কলম্বোর ফান্ট অৰ্দ্ধ ছটাক, একত্র মিশ্রিত করিয়া এইরূপ এক এক মাত্র প্রত্যহ ইরার সেবন করিতে হইবে । চক্ষের ভিতর প্রয়োগ করিৱার জল্প, কেহ অৰ্ধ ছটাক গোলাব | 4 | জলের সজেনকিনক টঙ্কার জাওডিন মিশ্ৰিত করিয়া প্রত্যহ ১৪ বিষ্ণু ঐ ঔষধ চক্ষের ভিতর প্রয়োগ করিতে ব্যবস্থা দেম । কেহ কেহ মৰ্দ্ধছটাক পরিষ্কার জলের সঙ্গে অৰ্দ্ধরতি এট্রোপিয়া মিশ্রিত করিয়া তাহার দুই এক বিজু প্রত্যহ কিম্বা চারি পাঁচ দিম অন্তর চক্ষের ভিতর দিতে বলেন। ইহার দ্বারা কশিনিক অর্থাৎ চক্ষের তারা প্রসারিত হয়; সে জন্য ছানিযুক্ত চক্ষে দেখিতে পাওয়া যায় । এট্রোপিয়া বিষ, বেলেডোনার বীৰ্য্যে প্রস্তুত। অতএব ইহা সেবন করা নিষিদ্ধ। অস্ত্রপ্রয়োগ—যতক্ষণ ইট চক্ষের মধ্যে এক চক্ষে দৃষ্টি থাকিবে, সে পৰ্য্যস্ত ছানিতে অস্ত্র প্রয়োগ করিবে না। কারণ এক চক্ষের ছানি তুলাইতে গিয়া, ছুইটী চক্ষুই নষ্ট হইতে পারে । ছানিতে অস্ত্র করাইলে তাহার ফল নিশ্চিত নহে । . . অস্ত্রপ্রয়োগ ছুই প্রকায়। এক, ছানির নিয়ের পাতল চৰ্ম্মে ছিদ্র করিয়া ছানির রস ভিতরে ডুবাইয়া দেওয়া। অন্তটী— ছানির আবরণ অন্ত্রদ্বারা উঠাইয়া কাম । প্রথম উপায়টাতে বিপদ অনেক । ছানির রস ভিতরে ডুবাইয়া দিলে হয়ত ভয়ঙ্কর প্রদাহ উপস্থিত হইতে পারে। তৰ্জ্জন্ত এখনকার কোন বিজ্ঞ চিকিৎসক সে প্রকার চিকিৎসা করেন না। আমাদের দেশের মালের এই উপায়টাই জানে, তাহারা ছামির রস চক্ষের ভিতর ডুবাইতে পারে,—উঠাইয়া আনিতে পারে না । অথচ সকল মালেই কৃত্রিম একট পর্দা আনিয়া রোগীকে ভুলায় । তাহার। অন্ত্রপ্রয়োগের পর গৃহস্থকে সেইটী দেখাইরা বলে যে,-ছানি উত্তম ফুলিয়া আনা হইয়াছে। ছানির রস খড়ির মত পরিপক্ক হইলে তবে অন্ত্রপ্রয়োগ করিৰে । একবার অন্ত্রাঘাত করিলে যদি কোন ফলোদয় না হয়, তবে আরোগ্যের আশা নিশ্চিত ক্ষুরাইল । কাহায়ও কাহারও ছানি বিনা চিকিৎসায় আপনি কমিয়া যায়, কিছুদিন পরে আবার বৃদ্ধি হইতে থাকে। হোমিওপ্যার্থী-প্রদাহের পর অর্থাৎ চক্ষু উঠিয়া তাহার পর ছানি পড়িলে বেলেডোন ১২ ডাইলিউসন, ১ বিষ্ণু মাত্রায় জলের সঙ্গে প্রত্যহ দুইবার সেবন করিবে। সল ফর ৩• ডাং, ফসফারস এ৯ ডাং, ক্যানাবিস ১২ ডাং, ক্যালকেরিয়া ১২ ডাং, কোলাম ৯২.াং, য়ুফ্রেসিয়৷ গুডাং, সিলিসিয়া ১ং ডং প্রভৃষ্টি ঔষধ সেবনে উপক্ষার দর্লে। . . : देवताक-झाक्छ उिच्न नशारेखाब्रबल श्रद्धाबा