পাতা:বিশ্বকোষ সপ্তম খণ্ড.djvu/১৩১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্ত্রীবেtৎপত্তিবাদ ७हे गरुजू छूठ श्tउ खेथिउ इहेब्रां जांबांब्र छूटङब्र विनाप्न "বিনষ্ট হয় এবং উপাধির বিনাশ হওয়ায় সংজ্ঞা অর্থাৎ বিশেষ বিজ্ঞান বিনাশ প্রাপ্ত হয়। ঐ বিনাশ উপাধির বিনাশ, আত্মার বিনাশ নহে। তাহাও এই শ্রুতি-প্রমাণে নিরাকৃত হইয়াছে। “ভগবন! আত্মা বিজ্ঞানঘন কেবল বিজ্ঞান অথচ সংজ্ঞা থাকে না, আপনার এই কথা আমি স্পষ্টরূপে বুঝিতে পারিলাম না।” ইহার প্রত্যুত্তরে ঋষি বলিলেন, “আমি बांख कथा वशि नाहे । श्रांग्र अविनांनैौ श्रांज्रांग्न खेtछ्न ७ পরিণাম হয় না। তবে কিনা তাহার সহিত মায়ার অর্থাৎ বিষয়ের সম্পর্ক হয়। বিষয় সম্পর্ককালে বিষয়ৰূপী হয়, আবার বিষয়-বিগমে কেবল হন ।” অবিকৃত ব্ৰহ্মই শরীর সম্পর্কে জীব, ইহা স্বীকার করিলেও এক বিজ্ঞানে সৰ্ব্ববিজ্ঞান७धङिछ नटे रुग्न न । छे°ांथि-निरझन जक्रt१ग्न थtङझ श्हेয়াছে অর্থাৎ ব্ৰহ্মলক্ষণ একরূপ আর জীব লক্ষণ অন্তরূপ । এখন আত্মার যে উৎপত্তি হয় না, তাহ বোধ করি সহজেই অনুমিত হইতে পরিবে। পূৰ্ব্বোক্ত ভাগবতদিগের যে ঐ কল্পনা তৎপ্রতি আরও অনেক হেতু দর্শিত হইয়াছে। “ ন চ কৰ্ত্ত করশং” (সা স্ব' ) লোক মধ্যে দেবদত্তাদি কৰ্ত্ত হইতে দাত্রাদিকরণের (ক্রিয়া-নিম্পাদক পদার্থের) উৎপত্তি দৃষ্টিগোচর হয় না। অথচ ভাগবতের বর্ণন করেন, সঙ্কর্ষণ নামক কৰ্ত্ত জীব প্রজ্যুম্ন নামক করণ মন জন্মাইয়া থাকেন । আবার সেই কর্তৃজন্ম প্রদ্যুম্ন ( মন ) হইতে অনিরুদ্ধের (অহঙ্কারের ) উৎপত্তি হয় । ভাগবতদিগের এই কথা বিনা দৃষ্টাস্তে গ্রহণ করা কাহারও সঙ্গত নহে। ভাগবতদিগের এমন অভিপ্রায় ও হইতে পারে যে উক্ত সঙ্কর্ষণাদি জীবভাবাম্বিত নহে। উহারা সকলেই .ঈশ্বর, সকলেই জ্ঞানশক্তি ও ঐশ্বৰ্য্যশক্তিযুক্ত বল বীৰ্য্য ও তেজঃসম্পন্ন, সকলেই বাসুদেব-নিরধিষ্ঠিত ও নিরবদ্য * । সুতরাং তাহাদের সম্বন্ধে উৎপত্তি-সম্ভব দোষ নাই। এই অভিপ্রায়ের উপর বলা যাইতেছে, তাহদের উক্ত অভিপ্রায় থাকিলেও উৎপত্তি-সম্ভব দোষ নিৰ্দ্ধারিত হয় না। অর্থাৎ অন্য প্রকাস্তুে ঐ দোষ আগমন করে। তাহার প্রকার এইরূপ, সঙ্কর্ষণ প্রস্থ্যম ও অনিরুদ্ধ ইহার পরম্পর ভিন্ন একাত্মক নহে অথচ সকলেই সমধৰ্ম্মী ও ঈশ্বর এই অর্থ অভিপ্রেত হইলে অনেক ঈশ্বর স্বীকার করা হয়। কিন্তু অনেক ঈশ্বর স্বীকার নিম্প্রয়োজন। কেন না এক ঈশ্বর স্বীকার করিলেই ইঃসিদ্ধি হইতে পারে। ভগবান বামুদেব এক অর্থাৎ

  • विैदिङि चधाकृडिछ, जरीरै टाइडि गण्ड नप्र। निश्चदश नां★दिब्रहिछ । निtéांब ब्रtभाशि ब्रश्ङि ।

[ ১২৯ } জীবোৎপত্তিবাদ । অদ্বিতীয় ও পরমার্থ তত্ত্ব এইরূপ প্রতিজ্ঞ থাকায় সিদ্ধান্তছানি দোষও ঘটে । ঐ চতুবুহি ভগবানই এবং তাহারা সকলেই সমধম্মী, এরূপ হইলেও উৎপত্তিসম্ভব দোষ তদবস্থ থাকে। যেহেতু অতিশয় (ছোট বড় তর তম) না থাকায় বাস্থদেৰ হইতে সঙ্কর্ষণের, সঙ্কর্ষণ হইতে প্রহ্লামের ও প্রন্থায় হইতে অনিরুদ্ধের জন্ম হইতে পারে না। কাৰ্য্যকারণের মধ্যে অতিশয় থাকাই নিয়ম । যেমন মৃত্তিকা ও ঘট । অতিশয় না থাকিলে কোনটা কাৰ্য্য কোনট কারণ তাহা নির্দেশ করিতে পরিবে না । আরও দেখ লঞ্চরাত্র-সিন্ধান্তীর বাসুদেবাদির জ্ঞানাদি उॉब्रङमाझउ ८डन ब्रांप्नन न । बांउदिक द्मश्छङ्कडेब्रष्क অবিশেষে বাসুদেব বলিয়া মান্ত করেন । ভগবানের বৃহ (ভিন্ন সংস্থান ) কি চতুঃসংখ্যাতেই পৰ্যাপ্ত হইয়াছে ? তাহা নহে । ব্ৰহ্মাদি স্তম্ব পর্য্যস্ত ( স্তম্ব-তৃণগুচ্ছ) সমুদয় জগৎই ভগবদ্যুহ। ইহা শ্রুতি স্মৃতি প্রভৃতি সকল ধৰ্ম্মশাস্ত্রেরই মত। ভাগবতদিগের শাস্ত্রে গুণ গুণিভাব প্রভৃতি অনেক প্রকার বিরুদ্ধ কল্পনা আছে। নিজেই গুণ, নিজেই গুণী, ইহা অবশুই বিরুদ্ধ। ভাগবতগণ বলিয়া থাকেন, জ্ঞানশক্তি, ঐশ্বৰ্য্যশক্তি, বল, বীৰ্য্য, তেজঃ এ সকল গুণ এবং প্রদ্যুম্নাদি ভিন্ন হইলেও আত্মা ও ভগবান বাসুদেব। আরও দেখ তাহাদের শাস্ত্রে বেদনিনা আছে । “চতুযু বেদেষু পরং শ্রেয়োইলন্ধা শাণ্ডিল্য ইদং শাস্ত্ৰং অধিগতবানু ” (শা স্ব ভা" ) শাণ্ডিল্য চরিবেদে পরম শ্রেয়োলাভ না করিয়া অবশেষে এই শাস্ত্র প্রাপ্ত হইয়াছিলেন। যে ধৰ্ম্মগ্রন্থে বেদনিন্দ দেখা যায়, তাহাও ধৰ্ম্মজিজ্ঞামুর গ্রহণীয় নহে। এই কারণে ভাগবতমতাবলম্বীদিগের জীবোৎপত্তি বিষয়ে এই প্রকার কল্পনা অসঙ্গত ও নিতান্ত অগ্রাহ । কণাদের মতে—আত্মা আগন্তুক চৈতন্ত অর্থাৎ স্বতঃচেতন নহে । নিমিত্ত বশতঃ তাহতে চৈতন্তু নামক গুণ জন্মে । আবার সাংখ্যদর্শনের মতে আত্মা নিত্য চৈতন্যরূপী । এই দুই বিরুদ্ধমত দৃষ্টে সংশয় উপস্থিত হয়, আত্মার স্বরূপ কি ? তিনি কি বৈশেষিকদিগের ন্যায়ু আগন্তুক চৈতন্ত ? না সাংখ্যের অভিমত নিত্য চৈতন্যরূপী ? কিন্তু সাধারণ যুক্তিতে আগস্তুক চৈতন্ত পাওয়া যায়। যেমন অগ্নির সহিত ঘটের ংযোগ হইলে ঘটে লৌহিত্য গুণ জন্মে, তেমনি মনের সহিত আত্মার সংযোগ হইলে আত্মার চৈতন্তগুণ জন্মে। আত্মা নিত্য চৈতন্তরূপী হইলে অবশুই মুগু, মূৰ্ছিত ও গ্রহাবিষ্ট অবস্থায় চৈতন্য দর্শন ধাকিত। ঐ সকল অবস্থায় চৈতন