পাতা:ব্যঙ্গকৌতুক - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


や © ব্যঙ্গকৌতুক ( কাত্তিকের পাশ্বে বসিয়া ) গুহ, আপনি ভালে অাছেন তো ? আপনাদের এখানকার মিলিটারি ডিপার্টমেণ্ট সম্বন্ধে আমার দুটো একট। খবর নেবার আছে । আপনার কী রকম নিয়মে—আচ্ছ। ত হ’লে এখন থাক আগে আপনাদের অভিনয়ট হ’য়ে যাক ? কেবল একটা কথা জিজ্ঞাসা করি—এই যে নাটকটি অভিনয় হ’চ্চে এর নাম তে৷ শুনচি, চিত্ৰলেখার বিরহ–এর উদেশ্বট কী আমাকে বুঝিয়ে দিতে হবে । উদ্দেশ্য দু-রকমের হতে পারে, এক জ্ঞানশিক্ষা, আর এক নীতিশিক্ষ। } কবি, হয়, এই গ্রন্থের মধ্যে কোনো একট। জাগতিক নিয়ম আমাদের সহজে বুঝিয়ে দিয়েচেন, নয় স্পষ্ট ক’রে দেখিয়ে দিয়েচেন যে, ভালো ক’রলে ভালো হয়, মন্দ করলে মন্দই হ’য়ে থাকে। ভেবে দেখুন, বিবর্তনবাদের নিয়ম অনুসারে পরমাণুপুঞ্জ কী রকম ক’রে ক্রমে ক্রমে বিচিত্র জগতে পরিণত হ’লে—কিম্ব আমাদের ইচ্ছাশক্তি যে অংশে পূৰ্ব্ববত্ত কৰ্ম্মের ফল সেই অংশে বদ্ধ এবং যে অংশে পরবত্তী কৰ্ম্মকে জন্ম দেয় সেই অংশে মুক্ত এই চিরস্থায়ী বিরোধের সামঞ্জস্য কোনখানে —-কাব্যে যখন সেই তত্ত্ব পরিস্ফুট হয় তখন কাব্যের উদ্দেশ্যটি হাতে হাতে পাওয়া যায় ! চিত্ৰলেখার বিরহের মধ্যে এর কোনটি আছে ? আপনি তো বিগলিত প্রায় হ’য়ে এসেচেন ; যে রকম দেখচি দেবলোকে যদি ফিজিয়লজির নিয়ম বলে একটা কিছু থাকৃতে তা হ’লে এথনি আপনার দ্বাদশ চক্ষু থেকে আশ্রধারা প্রবাহিত হ’তো ! যাই হোক কাত্তিক, এ বড়ো দুঃখের বিষয় স্বর্গে আপনাদের রাশি রাশি কাব্য নাটকের ছড়াছড়ি যাচ্চে কিন্তু যাতে গবেষণা কিম্বা চিন্তাশীলতার পরিচয় পাওয়া যায় স্বগীয় গ্রন্থকারদের হাত থেকে এমন একটা কিছুক্ত বেরোচ্চে না ! ( ঈষৎ হাস্যসহকারে ) দেখচি “চিত্ৰলেখার বিরহ” নাটকখানা আপনার বড়োই ভালো লেগে গেচে, তা হ’লে অন্য প্রসঙ্গ থাক আপনি ঐটেই দেখুন !