পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (অচলিত) প্রথম খণ্ড.pdf/১১৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ॐ रै রবীন্দ্র-রচনাবলী সকলি অক্ষুট হেথা মধুর স্বপনে-গাথা চেতনা মিশান’ যেন ঘুমে । অশ্রী শোক দুঃখ ব্যথা কিছুই নাহিক হেথা জ্যোতিৰ্ম্ময় নন্দনের ভূমে ! আমি যাব সেই খানে পুলকপ্ৰমত্ত প্ৰাণে সেই দিনকার মত বেড়াব খেলিয়া— বেড়াব তটিনীতীরে, খেলাব তটিনীনীরে, বেড়াইব জ্যোছনায় কুসুম তুলিয়া ! শুনিছি মৃত্যুর পিছু পৃথিবীর সব-কিছু ভুলিতে হয় নাকি গো যা আছে এখানে ! ওমা ! সে কি করে হবে ? মরিতে চাই না তবে নীরদে ভুলিতে আমি চাব কোন প্রাণে ?” কমলা এতেক পরে হেরিল সহসা নীরদ কাননপথে যাইছে চলিয়া— মুখপানে চাহি রয় বালিকা বিবশা, হৃদয়ে শোণিতরাশি উঠে উথলিয়া । নীরদের স্বন্ধে খেলে নিবিড় কুন্তল, দেহ অবিরিয়া রহে গৈরিক বসন, গভীর ঔদাস্তে যেন পূর্ণ হৃদিতল— চলিছে যে দিকে যেন চলিছে চরণ । যুবা কমলারে দেখি ফিরাইয়া লয় জাখি, চলিল ফিরায়ে মুখ দীর্ঘশ্বাস ফেলি। যুবক চলিয়া যায় বালিকা তবুও হায় ! চাহি রয় একদৃষ্টে আঁখিন্ধয় মেলি ।