পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/১৭৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শেষরক্ষা ›õዓ গদাই। সেকেও হ্যাও, নিলেম থেকে শস্তায় কিনেছি, আপনার কাছে থেকে টাকা চাইতে ভয় করে। শিবচরণ। চাইলেই পেতিস কিনা ! ফিরিয়ে দে। ছিছি ! ঐ নোংরা মোজাগুলো নিয়ে বেড়াচ্ছিস । কী জানি কোন ব্যামোর ছোয়াচ আছে ওর মধ্যে— গদাই । আমারও সে ভয় আছে বাবা, ছোয়াচ যে কোথায় কী থাকে কিছু বলবার জো নেই। এখনো ফিরিয়ে দিতে পারব, কালই না হয়— শিবচরণ। সেই ভালো । এই নে, তোকে দেড় টাকা দিচ্ছি— পাকপ্রণালী দু খণ্ড কিনে তাকে দিস। এখন গাড়িতে ওঠ । ( সহিসের প্রতি ) দেখ, একেবারে সেই পটলডাঙার কালেজে নিয়ে যাবি, কোথাও থামাবি নে । গদাই । ( জনাস্তিকে সহিসের প্রতি ) মির্জাপুর চন্দ্রবাবুর বাসায় চল, তোদের এক টাকা বকশিশ দেব, ছুটে চল । [ প্রস্থান শিবচরণ। আজ আর রুগি দেথা হল না। আমার সকাল বেলাটা মাটি করে দিলে । [ প্রস্থান দ্বিতীয় দৃশ্য চন্দ্র কান্তের বাসা চন্দ্রকান্ত । নাং, এ আগাগোড়া কেবল ছেলেমাতুষি করা হয়েছে । আমার এমন অনুতাপ হচ্ছে! মনে হচ্ছে যেন আমিই এ সমস্ত কাগুটি ঘটিয়েছি। ইদিকে এত কল্পনা, এত কবিত্ব, এত মাতামাতি, আর বিয়ের দু দিন না যেতে যেতেই কিছু আর মনে ধরছে না । গদাইয়ের প্রবেশ গদাই । কী হচ্ছে চন্দরদী ? চন্দ্রকান্ত । না গদাই, তোরা আর বিয়েথাওয়া করিস নে । গদাই । কেন বলে দেখি। তোমার ঘাড়ে ম্যালথসের ভূত চাপল নাকি ? চন্দ্রকান্ত । এখনকার ছেলেরা তোরা মেয়েমানুষকে বিয়ে করবার যোগ্য নোস । তোরা কেবল লম্বাচওড়া কথা কবি আর কবিতা লিখবি, তাতে ষে পৃথিবীর কী উপকার হবে ভগবান জানেন।