পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (ঊনবিংশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৮৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রবীন্দ্র-রচনাবলী যত তর্ক কর তুমি, যে যুক্তি দাও-না ইহার পাওনা ওই মেয়েটাকে হবে মেটাতে সত্বর । আমারি এ ঘর, আমারি এ ধনজন আমারি শাসন, আর কারো নয়, আজই আমি দেব তার পরিচয় । প্রমিত যাবার বেলা ঘরে দিয়ে দ্বার খুলে দিল সব অলংকার । পরিল মিলের শাড়ি মোটাস্বতা-বোনা । কানে ছিল সোনা, কোনো জন্মদিনে তার স্বগীয় কর্তার উপহার, বাক্সে তুলি রাখিল শয্যায়। ঘোমটায় সারামুখ ঢাকিল লজ্জায় । যবে, হতে গেল পার সদরের দ্বার, কোথা হতে অকস্মাৎ অমুকুল পাশে এসে ধরিল তাহার হাত কৌতুহলী দাসদাসী সবলে ঠেলিয়া সবাকারে ; কহিল সে, “এই দ্বারে এতদিনে মুক্ত হল এইবার মিলনযাত্রার পথ প্রমিতার । যে শুনিতে চাও শোনো, মোরা দোহে ফিরিব না এ দ্বারে কখনো ।” ৫ ভান্দ্র ১৩৪২ শান্তিনিকেতন