পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (একাদশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৩৬৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অচলায়তন "ෂ9°) NG) | অ a মহাপঞ্চক, উপাধ্যায়, সঞ্জীব, বিশ্বম্ভর, জয়োত্তম বিশ্বম্ভর । আচার্য অদীনপুণ্য যদি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ না করেন তবে তিনি যেমন আছেন থাকুন কিন্তু আমরা তার কোনো আহুশাসন মানব না। জয়োত্তম । তিনি বলেন, তার গুরু তাকে ষে আসনে বসিয়েছেন তার গুরুই তাকে সেই আসন থেকে নামিয়ে দেবেন সেইজন্যে তিনি অপেক্ষা করছেন। একটি ছাত্রের প্রবেশ মহীপঞ্চক। কী হে তৃণাঞ্জন । তৃণাঞ্জন । আজ দ্বাদশী, আজ আমার লোকেশ্বর ব্রতের পারণের দিন । কিন্তু কী করব, আমাদের আচার্য যে কে তার তো কোনো ঠিক হল না— আমাদের যে সমস্ত ক্রিয়াকাণ্ড পণ্ড হতে বসল এর কী করা যায় ! মহাপঞ্চক। সে তো আমি তোমাদের বলে রেখেছি— এখন আশ্রমে যা-কিছু কাজ হচ্ছে, সমস্তই নিষ্ফল হচ্ছে । উপাধ্যায়। শুধু নিষ্ফল হচ্ছে তা নয়, আমাদের অপরাধ ক্রমেই জমে উঠছে। সঞ্জীব । এ যে বড়ো সর্বনেশে কথা । জয়োত্তম। কিন্তু আমাদের গুরু আসবার তো দেরি নেই, এর মধ্যে আর কত অনিষ্টই বা হবে । يحة সঞ্জীব । আরে রাখে। তোমার তর্ক। অনিষ্ট হতে সময় লাগে না। মরার পক্ষে এক মুহূর্তই যথেষ্ট। অধ্যেতার প্রবেশ উপাধ্যায়। কী গো অধ্যেতা, ব্যাপার কী । অধ্যেতা । তোমরা তো আমাকে বলে এলে সুভদ্রকে মহাতামসে বসাতে— কিন্তু বসায় কার সাধ্য । মহাপঞ্চক । কেন, কী বিল্প ঘটেছে । অধ্যেতা। মূর্তিমান বিঘ্ন রয়েছে তোমার ভাই ! মহাপঞ্চক। পঞ্চক ?