পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (চতুর্দশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/২৭৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


३७8 রবীন্দ্র-রচনাবলী রাজধর বলিলেন, “ঠাকুরানী, আমরা আজ তিন ভাই শিকার করিতে যাইব তাই এই বেশ ।” কমলাদেবী আশ্চর্ষ হইয়া কহিলেন, “তিন ভাই! তুমিও যাইবে না কি। আজ তিন ভাই একত্র হইবে । এ তে ভালো লক্ষণ নয়। এ যে ত্ৰাহস্পর্শ হইল।” যেন বড়ো ঠাট্ট হইল এই ভাবে রাজধর হা হা করিয়া হাসিলেন, কিন্তু বিশেষ কিছু বলিলেন না । কমলাদেবী কহিলেন, “না না, তাহা হইবে না-রোজ-রোজ শিকার করিতে যাইৰেন আর আমি ঘরে বসিয়া ভাবিয়া মরি।” রাজধর বলিলেন, “আজ আবার রাত্রে শিকার ।” কমলাদেবী মাথা নাড়িয়া বলিলেন, “সে কখনোই হইবে না । দেখিব আজ কেমন করিয়া যান ।” রাজধর বলিলেন, “ঠাকুরানী, এক কাজ করে, ধভুকবাণগুলি লুকাইয়া রাখো ।” কমলাদেবী কহিলেন, “কোথায় লুকাইব ।” রাজধর। আমার কাছে দাও, আমি লুকাইয়া রাখিব । কমলাদেবী হাসিয়া কহিলেন, “মন্দ কথা নয়, সে বড়ো রঙ্গ হইবে।” কিন্তু মনে মনে বলিলেন, “তোমার একটা কী মতলব আছে। তুমি যে কেবল আমার উপকার করিতে আসিয়াছ তাহা বোধ হয় না।” “এস, অস্থশালায় এস” বলিয়া কমলাদেবী রাজধরকে সঙ্গে করিয়া লইয়া গেলেন। চাবি লইয়া ইন্দ্রকুমারের অস্ত্রশালার দ্বার খুলিয়া দিলেন। রাজধর যেমন ভিতরে প্রবেশ করিলেন অমনি কমলাদেবী দ্বারে তালা লাগাইয়া দিলেন, রাজধর ঘরের মধ্যে বন্ধ হইয়া রহিলেন । কমলাদেবী বাহির হইতে হাসিয়া বলিলেন, “ঠাকুরপো, আমি তবে আজ আসি ।” এদিকে সন্ধ্যার সময় ইন্দ্রকুমার অন্তঃপুরে আসিয়া অস্ত্রশালার চাবি কোথাও খুজিয়া পাইতেছেন না। কমলাদেবী হাসিতে হাসিতে বলিলেন, “ছাগ, আমাকে খুজিতেছ বুঝি, আমি তো হারাই নাই।” শিকারের সময় বহিয়া যায় দেখিয়া ইন্দ্রকুমার দ্বিগুণ ব্যস্ত হইয়া খোজ করিতে লাগিলেন । কমলাদেবী তাহাকে বাধা দিয়া আবার তাহার মুখের কাছে গিয়া দাড়াইলেন—হাসিতে হাসিতে বলিলেন, "হাগা, দেখিতে কি পাও না । চোখের সম্মুখে তৰু ঘরময় বেড়াইতেছ।” ইন্দ্রকুমার কিঞ্চিং কাতরস্বরে কহিলেন, “দেবী, এখন বাধা দিয়ে না—আমার একটা বড়ো আবশ্বকের জিনিস হারাইয়াছে।”