পাতা:রবীন্দ্র-রচনাবলী (চতুর্দশ খণ্ড) - বিশ্বভারতী.pdf/৪০৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


লাভ কতি নিন্দ প্রশংসা প্রকৃতি লোকধর্মের দ্বারা আঘাত পেলেও যাৰ চিত্ত কম্পিত হয় না, যার শোক নেই, মলিনতা নেই, যার ভয় নেই সে উত্তম মঙ্গল পেয়েছে । § . . . o এতাদিসানি কত্বান, সবখমপরাজিত B DDD DD DDS DDD BBBB BBBDDDS BBBS BBB BBB BB BB BBD DDD मत्रका रङ्ग । যারা বলে ধর্মনীতিই বৌদ্ধধর্মের চরম তারা ঠিক কথা বলে না। মঙ্গল একটা উপায় মাত্র। তবে নির্বাণই চরম ? তা হতে পারে কিন্তু সেই নির্বাণটি কী ? সে কি শূন্তত ? যদি শূন্ততাই হত তবে পূর্ণতার দ্বারা তাতে গিয়ে পৌছোনো যেত না। তবে কেবলই সমস্তকে অস্বীকার করতে করতে নয় নয় নয় বলতে বলতে একটার পর একটা ত্যাগ করতে করতেই সেই সর্বশূন্ততার মধ্যে নির্বাপণ লাভ করা যেত। কিন্তু বৌদ্ধধর্মে সে পথের ঠিক উলটা পথ দেখি যে। তাতে কেবল তো মঙ্গল দেখছি নে—মঙ্গলের চেয়েও বড়ো জিনিসটি দেখছি যে । মঙ্গলের মধ্যেও একটা প্রয়োজনের ভাব আছে। অর্থাৎ তাতে একটা কোনো ভালো উদ্দেশু সাধন করে, কোনো একটা স্বখ হয় বা হুযোগ হয়। কিন্তু প্রেম যে সকল প্রযোজনের বাড়া। কারণ প্রেম হচ্ছে স্বতই আনন্দ, স্বতই পূর্ণতা, সে কিছুই নেওয়ার অপেক্ষা করে না, লে ষে কেবলই দেওয়া । যে দেওয়ার মধ্যে কোনো নেওয়ার সম্বন্ধ নেই সেইটেই হচ্ছে শেষের কথা— সেইটেই ব্রন্ধের স্বরূপ—তিনি নেন না। 膏雕 এই প্রেমের ভাবে, এই আদানবিহীন প্রদানের ভাবে আত্মাকে ক্রমশ পরিপূর্ণ করে তোলবার জন্তে বুদ্ধদেবের উপদেশ আছে, তিনি তার সাধনপ্রণালীও বলে দিয়েছেন। এ তো বাসনা-সংহরণের প্রণালী নয়, এ তো বিশ্ব হতে বিমুখ হবার প্রণালী নয়, এ যে সকলের অভিমুখে আত্মাকে ব্যাপ্ত করবার পদ্ধতি। এই প্রণালীর নাম মেত্তি ভাবনা—মৈত্রীভাবনা । * * * * po প্রতিদিন এই কথা ভাবতে হবে— . . BB BB BBB BBS BB BBBS BBBBB D BDS DD DDDDB BBDDDS DD DD D বখালদ্ধসম্পত্তিতে বিগচ্ছন্তু । * गरूण आनै प्रविड रक, भक्रीन श्क, अश्रिनिड श्रू, त्यो आन्त र काण रङ्ग कङ्गक। गरुण প্রাণী আপন বখানসম্পত্তি হতে বঞ্চিত নহ'ক । ১৪২৬ 滤